Press "Enter" to skip to content

পরীক্ষাগারে করোনা ভাইরাস প্রস্তুত করা হয়েছে

  • চীনের এই বিজ্ঞানী এপ্রিলে আমেরিকা পালিয়ে এসেছেন

  • তিনি বলেছেন চীন সরকার এর আগে সবকিছু জানত

  • ব্যাপারটি জানতে বলেই তাকেও পালাতে হয়েছে

  • বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা কথা চেপে বড় ভুল করেছে

রাঁচি: পরীক্ষাগারে করোনা ভাইরাস প্রস্তুত করার অভিযোগের সাথে মামলা গোপন করার

গুরুতর অভিযোগ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ওপর উঠেছে। চীনে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার পরে

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ভাইরাসটির প্রাদুর্ভাব সম্পর্কে জানার পরেও নীরব ছিল বলে অভিযোগ করা

হয়।এই নীরবতা ভাইরাসটিকে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে দিতে আরও সময় দেয়। অভিযোগটি আবার

থেকে চর্চায এসেছে যে এটি আসলে কোনও প্রাকৃতিক ভাইরাস নয়। এটি বিজ্ঞানীরা উহানের

একটি পরীক্ষাগারে তৈরি করেছেন। এটি একটি চীনা বিজ্ঞানী দ্বারা অভিযোগ করা হয়েছে এবং

তিনি আজকাল চীন থেকে পালিয়ে আসার পরে লুকিয়ে আছেন। করোনা ভাইরাসের ক্ষেত্রে এই

অভিযোগটিকে আগের মতো খারিজ করা হচ্ছে না কারণ সারা পৃথিবী থেকে এমনও ইঙ্গিত

পাওয়া গেছে যে এই মারাত্মক ভাইরাস তার রূপ পরিবর্তন করছে। প্রথমদিকে এই প্রক্রিয়াটি

বেশ ধীর ছিল, তবে এখন ভাইরাসের অভ্যন্তরীণ প্যাটার্নের পরিবর্তনটি নিশ্চিত হয়েছে,

বিশেষত আমেরিকানদের মধ্যে। প্রকাশ্যে জানা গেছে যে ভাইরাসটি আসলে উহানের সামুদ্রিক

খাবারের বাজার থেকে ছড়িয়ে পড়েছিল। তবে আমেরিকা পালিয়ে আসা চীনা বিজ্ঞানীরা এই

যুক্তি প্রত্যাখ্যান করেছেন। তাঁর মতে এটি পরীক্ষাগারে প্রস্তুত করা হয়েছিল। যার তথ্য

ইতিমধ্যে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কাছে জানা ছিল, তবে এই সংস্থাটি নির্দিষ্ট কারণে চুপ করে রইল।

ফলস্বরূপ, ভাইরাসটি বিশ্বের অন্যান্য দেশে ছড়িয়ে পড়ে। এখন পুরো বিশ্ব তার চূড়ান্ত ক্ষতির

মুখোমুখি হচ্ছে।

উহানের সামুদ্রিক বাজার থেকে ছড়িয়ে পড়ার কথা মিথ্যা

তবে এই চীনা বিজ্ঞানীর কথা বাদ দিয়ে বিশ্বের অনেক দেশই চীনের সমুদ্র খাদ্য বাজারের দাবী

মানছে না এবং তারা নিজের স্তরে ভাইরাসের উদ্ভবের বিষয়টি খতিয়ে দেখছে। সন্দেহের

অবকাশ রয়েছে কারণ নয় মাস পরেও অন্যান্য বিজ্ঞানীরা চিনের এই ভাইরাস সম্পর্কে খুব

বেশি কিছু জানতে পারেননি। চীন নিজেও এই ব্যাপারে যথেষ্ট গোপনীয়তা অবলম্বন করে

চলেছে। তার ফলে সন্দেহ আরও বাড়ছে।

চীনা মহিলা বিজ্ঞানী ডঃ লি মেনগ ইয়ান বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বিরুদ্ধে চুপ করে থাকার গুরুতর

অভিযোগকারী। গত এপ্রিলে তিনি কোনওভাবে চীন (হংকং) থেকে পালিয়ে এসেছিলেন। কোনও

টিভি চ্যানেলকে দেওয়া সাক্ষাত্কারে তিনি প্রথম এই অভিযোগ করেছিলেন। তবে তিনি

বর্তমানে কোথায় লুকিয়ে আছেন তা জানা যায়নি। উইন টিভির সাথে এক সাক্ষাৎকারে তিনি

এসব কথা বলেছেন। তিনি এমন একমাত্র বিজ্ঞানী নন যে এই জাতীয় অভিযোগ করেছেন। এর

আগেও আরও অনেক বিজ্ঞানী তাদের মতামত ব্যক্ত করেছিলেন যে এই ভাইরাসটি আসলে

প্রাকৃতিক নয় তবে এটি পরীক্ষাগারে প্রস্তুত করা হয়েছে। চীনের ব্যাট ওম্যান নামে পরিচিত

একজন বিজ্ঞানীর তত্ত্বাবধানে গত সাত বছর ধরে উহানের গবেষণাগারে বাদুড় ভাইরাসের

উপর গবেষণা চলছে। তার টিভি সাক্ষাত্কারে মেনগ বলেছিলেন যে চীন সরকার এই হুমকির

বিষয়ে অনেক আগে অবগত ছিল। তবে মহামারী ছড়িয়ে পড়ার আগ পর্যন্ত চীন সরকার এই

বিষয়ে যথেষ্ট গোপনীয়তা বজায় রেখেছে।

পরীক্ষাগারে করোনা ভাইরাস তৈরি অভিযোগ আগেও 

এমনকি এখন সত্যই উহানের যা ঘটেছিল তা ঢাকা পড়ে গেছে। এই চীনা বিজ্ঞানী অভিযোগ

করেছেন যে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাটিও পরীক্ষাগারে করোনা ভাইরাসের বিস্তার সম্পর্কে সচেতন ছিল,

কিন্তু এই সংস্থাটি তার পক্ষে বিশ্বকে সতর্ক করার জন্য কোনও প্রচেষ্টাও করেনি। মনে রাখবেন

যে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা চীনের পক্ষে কাজ করার গুরুতর

অভিযোগ করেছেন। এই চীন থেকে পালিয়ে আসা এই বিজ্ঞানী বলেছেন যে এই বিষয়টিকে দমন

করার জন্য চীনে প্রবল প্রচেষ্টা রয়েছে, তবে দুঃখজনক পরিস্থিতিটি হ’ল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও এই

ষড়যন্ত্রে অংশ নিয়েছে। মনে রাখবেন যে 34 বছর বয়সী লি ওয়েনলিয়াং, চীন থেকে অপর

একজন ডাক্তার যিনি করোনায় মারা গেছেন বলে জানা গেছে। তবে মৃত্যুর আগে তিনি বিশ্বকে

এই বিষয়ে সতর্ক করেছিলেন। এখন তাঁর মৃত্যু সত্যই করোনার কারণে না তাকে হত্যা করে

হয়েছে, এই নিয়ে  নতুন বিতর্ক শুরু হয়েছে। এই সমস্ত বিতর্কের মধ্যেও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার

ভূমিকা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করা হচ্ছে।


 

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
More from বিতর্কMore posts in বিতর্ক »

Be First to Comment

Leave a Reply

Mission News Theme by Compete Themes.
error: Content is protected !!