Press "Enter" to skip to content

ছেলেধরা সন্দেহে দুই যুবতীর ওপর চড়াও গ্রামবাসীদের একাংশ

মালদাঃ ছেলেধরা সন্দেহে দুই যুবতীর ওপর চড়াও হলো একাংশ গ্রামবাসী।

ওই দুই যুবতীকে গণপিটুনির চেষ্টার ঘটনা জানতে পেরে সময়মতো পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

দুই জনকে উদ্ধারের পর নিয়ে আসা হয় থানায় ।

মঙ্গলবার রাতে চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে হরিশ্চন্দ্রপুর রেলস্টেশন সংলগ্ন এলাকায়।

রেল কর্তৃপক্ষ এবং পুলিশের চেষ্টায়  প্রাণে বেঁচে গিয়েছে ওই দুই যুবতী।

আপাতত জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করছে হরিশ্চন্দ্রপুর থানার পুলিশ।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে,  ২১-২২ বছর বয়সী ওই দুই যুবতীর বাড়ি বর্ধমানে।

তাদের নাম জানায়নি পুলিশ।

পরিবারে অভাব থাকায় তারা চাঁচোলে একটি সংস্থায় কাজে যোগ দিতে এসেছিল।

রাতে হরিশ্চন্দ্রপুর স্টেশনে তারা ট্রেন থেকে নামে।

স্টেশনের একটি জায়গায় বসেছিলো তারা।

সেই সময় কিছু মানুষ তাদেরকে দেখে সন্দেহ করে ।

এলাকার কয়েকজন ব্যক্তি  তাদের সঙ্গে কথাবার্তা বলে।

তাদের অসংলগ্ন কথাবার্তায় সন্দেহ আরও বেড়ে যায়।

মুহুর্তের মধ্যে ছেলেধরার গুজব ছড়িয়ে পড়ে।

পুলিশ জানিয়েছে, কিছুক্ষণের মধ্যেই বিপুল সংখ্যায় মানুষের জমায়েত শুরু হয়ে যায়।

তারা যুবতিদের ঘিরে ধরে মারতে শুরু করে।

কোন রকমে হরিশ্চন্দ্রপুর রেল কর্তৃপক্ষের তৎপরতায় ওই দুই যুবতীকে স্টেশন মাস্টারের ঘরে

নিয়ে গিয়ে বন্দি করে রাখা হয়।

তারই মধ্যে ক্ষিপ্ত জনতা ঘর ভাঙ্গার চেষ্টা করে বলে অভিযোগ।

খবর পেয়ে হরিশ্চন্দ্রপুর থানার পুলিশ এবং রেল পুলিশের অফিসাররা ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন।

তাঁদের তৎপরতায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।

হরিশ্চন্দ্রপুর থানার আইসি সঞ্জয় কুমার দাস জানিয়েছেন, “প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ওই দুই যুবতী জানিয়েছে

পরিবারের অভাব থাকায় তারা বাড়ি থেকে পালিয়ে এসেছে।

চাঁচোলে একটি জায়গায় কাজে যোগ দেওয়ার কথা ছিল তাদের।

হরিশ্চন্দ্রপুর স্টেশনে কিছু মানুষ ছেলেধরা সন্দেহ করে ওই দুইজনকে মারতে উদ্যত হয়েছিলো।

পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে”।

এদিকে ছেলেধরার গুজবে গণপিটুনির ঘটনায় রীতিমতো নড়েচড়ে বসেছে মহকুমা প্রশাসন।

সিভিক ভলেন্টিয়ারদের দিয়ে মাইকিং করে গুজবের বিরুদ্ধে প্রচার চালানোর কাজ

শুরু করেছে পুলিশ ও প্রশাসন ।

গুজবে মানুষ যাতে বিভ্রান্তির মধ্যে না পড়েন সেব্যাপারেও পুলিশের পক্ষ থেকে প্রচার করা হচ্ছে।

চাঁচোলের এসডিপিও সজলকান্তি বিশ্বাস জানিয়েছেন,  “এই ধরনের গুজব যারা রটানোর চেষ্টা করছে

তাদের চিহ্নিত করে ধরপাকড়ের চেষ্টা চালাচ্ছে সংশ্লিষ্ট থানার পুলিশ” ।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
More from HomeMore posts in Home »
More from অপরাধMore posts in অপরাধ »
More from তাজা খবরMore posts in তাজা খবর »
More from পশ্চিমবঙ্গMore posts in পশ্চিমবঙ্গ »

2 Comments

Leave a Reply

Mission News Theme by Compete Themes.
error: Content is protected !!