Press "Enter" to skip to content

স্বামী খুন হবার পরে এবার ঘটনার সাক্ষীদের হুমকি দেবার অভিযোগ




মালদাঃ স্বামী খুন হয়েছেন প্রায় ছয় মাস আগে। সেই ঘটনার প্রধান সাক্ষী

মৃতের স্ত্রী ও দুই ছেলেকে মারধর ও প্রাণনাশের হুমকি অভিযোগ উঠেছে

স্থানীয় দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে। এই ঘটনার পর গ্রাম ছাড়া মৃত রব্বুল

মোমিনের (৬৫) পরিবার আশ্রয় নিয়েছেন ইংরেজবাজার থানায়।

চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে ইংরেজবাজার থানার বিনোদপুর গ্রাম

পঞ্চায়েতের সাট্টারী গ্রামে। পুরো ঘটনাটি নিয়ে অভিযুক্ত সাববুল মোমিন,

সাবির সেখ সহ ৮ জনের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন মৃত

রব্বুলের পরিবার। ঘটনার তদন্তে নেমেছে ইংরেজবাজার থানার পুলিশ।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে দুষ্কৃতীদের হামলায় আহত হয়েছেন মৃত রব্বুল

মোমিনের স্ত্রী শাহানারা বেওয়া (৬০), জেম মোমিন এবং লাল মোহাম্মদ।

রবিবার রাতে তাদের এই হামলার ঘটনার পর মালদা মেডিকেল কলেজ

হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা করে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। সোমবার পুরো

বিষয়টি নিয়ে ইংরেজবাজার থানার পুলিশের দ্বারস্থ হয়েছেন অসহায় ওই

দিনমজুরের পরিবার। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, গত ছয় মাস আগে জমি

নিয়ে বিবাদের জেরে খুন হয় শাহানারার স্বামী রব্বুল মোমিন। মৃতের স্ত্রীর

অভিযোগের ভিত্তিতে প্রতিবেশী সাববুল মোমিন, সাবির সেখ সহ ৮ জনকে

পুলিশ গ্রেপ্তার করে। সম্প্রতি তারা জামিনে মুক্ত ছাড়া পেয়েছে। গ্রামে ফিরে

এসে অভিযোগ প্রত্যাহার করার জন্য মৃত রব্বুল মোমিনের স্ত্রী শাহানারা

বেওয়া ও তার দুই ছেলেকে হুমকি দিচ্ছে। আর তাতে রাজি না হওয়ায়

রবিবার রাতে ওই পরিবারের ওপর হামলা চালানো হয় বলে অভিযোগ।

অভিযুক্তরা শাহানারা ও তার দুই ছেলেকে ব্যাপক মারধর করে বলে

অভিযোগ। অভিযোগ প্রত্যাহার না করলে প্রাণনাশের হুমকি দেওয়া হয়।

স্বামী খুন এবং এই ঘটনার পরে থানায় আশ্রয় 

আতঙ্কে গোটা পরিবার রবিবার রাতে গ্রাম থেকে পালিয়ে আশ্রয় নিয়েছে

ইংরেজবাজার থানায়। ঘটনার পর থেকেই অভিযুক্তরা গা-ঢাকা দিয়েছে

ঘটনার তদন্তে নেমেছে ইংরেজবাজার থানার পুলিশ। আক্রান্ত মৃতের ছেলে

লাল মোহম্মদ পুলিশকে জানিয়েছেন, জমি বিবাদকে কেন্দ্র করেই

অভিযুক্তরা তার বাবাকে ছয় মাস আগে নৃশংস ভাবে খুন করেছিল।

এরপর তারাই ঘটনার সাক্ষী হিসাবে পুলিশে অভিযোগ করেন। আদালতে

মামলা উঠেছে। এখন সেই মামলা প্রত্যাহার করে নেওয়ার জন্য চাপ দিচ্ছে

অভিযুক্তরা। এই ঘটনার প্রতিবাদ করাতে তাদের ওপর অভিযুক্তরা

দলবল নিয়ে রবিবার রাতে চড়াও হয় ।মারধর করে বাড়ি ভাঙচুর করা

হয়। এরপর আতঙ্কে রাতেই পুলিশের দ্বারস্থ হয়েছি। পুলিশ সুপার অলোক

রাজোরিয়া জানিয়েছেন পুরো ঘটনাটি নিয়ে তদন্ত শুরু করেছে

ইংরেজবাজার থানার পুলিশ। হামলাকারী অভিযুক্তরা পলাতক তাদের

খোঁজ চালানো হচ্ছে।


 

Spread the love

One Comment

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.