My title page contents Press "Enter" to skip to content

দুই বাচ্চার খেলা থেকে শুরু হয়েছিলো অলাস্কার বিরাট যূদ্ধ




  • সাড়ে তিনশত বছর পুরোনা যূদ্ধের সাক্ষ্য পাওয়া গেছে

  • এই যূদ্ধ নিয়ে অনেক লোককথা প্রচলিত ছিলো

  • তীর ধনুকের যূদ্ধে ধংস হয়ে গিয়েছিলো এলাকা

  • মাটি খুঁড়ে পাওয়া গেছে সেই যূগের প্রচুর জিনিষ

প্রতিনিধি

নয়াদিল্লীঃ দূই বাচ্চার খেলা থেকে সত্যিই যূদ্ধ শুরু হয়েছিলো।

এনথ্রোপোলোজিস্টরা এর প্রমাণ এবার খূঁজে পেয়েছেন।

এই ব্যাপার অনেক রকমের গল্প আগে থেকে লোককথা হিসেবে প্রচলিত ছিলো।

এবার তার প্রমাণ পাওয়া গেছে। এই যূদ্ধ অলাস্কা থেকে সেই কালের ইউকোন অব্দি ছড়িয়ে পড়েছিলো।

সেই কালের বেশ আর্থিক সম্পন্ন এই এলাকা যূদ্ধের দরুন ধংস হয়ে গিয়েছিলো।

সেই এলাকার একটি বিশেষ জায়গায় মাটির খূঁড়ে পাওয়া গেছে এই যূদ্ধের কালে ব্যাপক নরসংহারে প্রমাণ।

এইখানে থেকে পাওয়া গেছে ২৮ জন লোকের দেহাবশেষ।

এই স্থান থেকে এতগুলো লোকের কবর ছাড়াও পাওয়া গেছে সেই যূগের প্রচুর জিনিষ পত্র।

যেগুলি দেখে বোঝা যায় যে সেই যূগে এখানের লোকেরা ভাল জীবন কাটাতেন।

এই যূদ্ধের ব্যাপারে গল্প জানা ছিলো যে দুই বাচ্চার নিজেদের মধ্যে ডার্ট (এক ধরনের ছোট তীর) নিয়ে খেলা করছিলো।

এই খেলার সময় এই বাচ্চার চোখে ডার্ট লাগে এবং তার চোথ নষ্ট হয়ে যায়।

যে বাচ্চার চোখ নষ্ট হয়ে যায়, তার বাবা রাগের মাথায় অন্য বাচ্চাটির দুই চোখ নষ্ট করে দেয়।

দুই বাচ্চার বাড়ির লোকেদের মধ্য শুরু হয় মারাপিট

তার পরে দুই বাচ্চার বাড়ির লোকেদের মধ্যে মারপিট শুরু হয়।

সেই মারপিট বাড়তে বাড়তে সারা এলাকায় ছড়িয়ে পডে।

অলাস্কা থেকে ইউকোন অব্দি ছড়িয়ে থাকা বসতির সব গ্রাম বা শহর এর কবলে পড়ে।

শেষ অব্দি প্রচুর দিন ধরে চলতে থাকা এই যূদ্ধে সবাই জড়িয়ে পড়়ে মারা যায়।

গল্পটি অনেকটা আমাদের যদু বংশ ধংস হবার মতন।

যে জায়গায় এই ঝামেলা শুরু হয়েছিলো, সেই এলাকাটি কে আগে বলা হব অগালিমূট।

বর্তমানে এই স্থান নূনালেক বলে পরিচিত।

এই এলাকায় খনন করে যে দেহগুলি পাওয়া গেছে, সেগুলি এলাকার পারমাফ্রস্টের জন্য খুব একটা নষ্ট হয় নি।

জানিয়ে রাখি যে পারমাফ্রস্ট মানে মাটির ভিতরে বরফের প্রচুর অংশ থাকা এলাকা।

তাই বরফের দরুন এই সব দেহগুলি ঠিক অবস্থ্যায় ছিলো।

এমনকি সেই খানে থেকে যে সব জিনিষ পাওয়া গেছে, তার মধ্যে কাঠের পুতুল বা অন্য অনেক জিনিয আছে, যেগুলি একেবারেই নষ্ট হয় নি।

যে কংকাল গুলি পাওয়া গেছে, তাদের সকলের হাত ঘাসের শক্ত দড়ি দিয়ে পিছনে করে বাঁধা।

প্রত্যেকের মাথার খূলির ভিতরে বড় গর্ত পাওয়া গেছে।

এই যূদ্ধকে অলাস্কার তির ধনুকের যূদ্ধ বলা হয়

সেই দেখে বিজ্ঞানিরা আন্দাজ করতে পেরেছেন যে এই সব লোকেদের হয় তির বা বল্লম দিয়ে আঘাত করে মারা হয়েছে।

সব লোকেরা এই একটি জায়গায় মারা গেছে বলে এটিকে সামুহিক কবর বলে ধরা হয়েছে।

স্কটল্যান্ডের অবেরডন বিশ্ববিদ্যালয়ের শোধ দল এই নিয়ে কাজ করেছে এবং সেই জায়গায় খনন করে প্রমাণ উদ্ধার করেছে।

প্রমাণ পাওয়া যাবার পরে তাঁরা আন্দাজ করেছেন যে এই যূদ্ধ ১৫৯০ থেকে ১৬৩০ সাল কালের ভিতর ঘটেছিলো।

এই যূদ্ধের ব্যাপারে অনেক লোককথা আগে থেকে প্রচলিত।

সেই হিসেবে জানা গেছে যে এই যূদ্ধ অনেক সময় ধরে চলান দরুন বিরাট বড় এলাকা পর্য্যন্ত ছড়িয়ে পড়েছিলো।

তবে জানা গেছে যে এই যূদ্ধ হবার পরে সেখানে ভীষণ অগ্নিকান্ড এবং আক্রমন এক সাথে চলেছিলো।

তাই সেখানের পূরে জনজীবন নষ্ট হয়ে যায়। এ

খান থেকে সেথান যূদ্ধ চলতে থাকার সময়ের অনেক গল্প শোনা গিয়েছিলো।

তবে এর প্রমাণ প্রথম বার পাওয়া গেছে।

একটি লোকোক্তি আছে যে সেথান দিয়ে যাবার সময় কোন এক সাধূ কোন কারণে ভীষণ রেগে গিয়েছিলেন।

তিনি সারা এলাকার লোকেদের শ্রাপ দিয়েছিলেন যে সবাই ধংস হয়ে মাটিতে মিশে যাবে।

এই যূদ্ধের ব্যাপারে আরেকটি গল্প আছে যে পুরুষেরা মারা যাওয়ার পরে মহিলারাও পুরুষের পোশাক পরে যূদ্ধে অংশ গ্রহন করেছিলেন।

সেই কালের এই যূদ্ধ কে স্থানীয় ইতিহাসে তির ধনুকের যূদ্ধ বলে জানা যায়।

কসাথে ২৮ জন লোকের দেহাবশেষ পাওয়া যাবার পরে এই কথা বিজ্ঞান সম্মত ভাবে প্রমাণিত হয়েছে।

কবরের সাথে সাথে সেই কালের প্রচুর জিনিষ দেখে বিজ্ঞানিরা জানতে পেরেছেন যে এই এলাকায় আর্থিক সচ্ছলতা ছিলো।

এবং সেই কালের প্রচুর মুখোশ পাওয়া গেলে এটা আন্দাজ করা গেছে যে

সেই সময়েও মানূষ এই ধরনের মুখোশ পরে নৃত্য করতো।



Spread the love

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.