মালদাঃ ভারত বাংলাদেশ সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে মারা গেছে দুই

বাংলাদেশী। বুধবার গভীর রাতে মালদা জেলার হবিবপুর থানার

বৈদ্যপুর গ্রামপঞ্চায়েতের কেদারীপাড়া বিওপির কাছে ভারত বাংলাদেশ

সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে দুই বাংলাদেশীর মৃত্যু। ধৃত এক। মৃত দুই

বাংলাদেশীর একজনের নাম সঞ্জীব কুমার অপর জনের নাম কামাল আলি।

আটক হওয়া যুবকের নাম কবির হাসান (২১)এদের সকলের বাড়ি

বাংলাদেশের নওগাঁ জেলাতে। বিএসএফ সূত্রে জানা গিয়েছে এদিন রাত্রি

বেলা কেদারিপারা এলাকায় একদল গরু পাচারকারী বাংলাদেশের

নওগাঁ জেলা থেকে ভারতীয় ভূখণ্ডে প্রবেশ করে। তারা প্রচুর গরু

বাংলাদেশে পাচার করার চেষ্টা করছিল। সেই সময় ওই এলাকায় প্রহরারত

১৫৯ নম্বর ব্যাটালিয়নের জাওয়ানরা তাদের বাধা দিতে গেলে তারা

জাওয়ানদের পর ইঁট পাটকেল ও ধারালো অস্ত্র নিয়ে হামলা করে। পাল্টা

আত্মরক্ষায় বিএসএফ গুলি চালালে দুই গরু পাচারকারী মৃত্যু হয়।

একজনকে আটক করেছে বিএসএফ।আটক হওয়া গরু পাচারকারী ও

মৃত পাচারকারীদের মৃতদেহ মালদার হবিবপুর থানার পুলিশের হাতে

তুলে দিয়েছে বিএসএফ। গোটা ঘটনা নিয়ে বিএসএফ কর্তৃপক্ষের কোনো

প্রতিক্রিয়া না পাওয়া গেলেও, জানা গেছে বর্তমানে কুয়াশার আড়ালে

সীমান্ত দিয়ে গরু পাচারের প্রবণতা বেড়ে গিয়েছে। আর সেই কারণেই

বিএসএফের গোয়েন্দা শাখার তথ্যের ভিত্তিতে সীমান্তে প্রহরা দ্বিগুণ করেছে

বিএসএফ।জেলা পুলিশ সুপার অলোক রাজোরিয়া বলেন দুটি মৃতদেহ

ময়নাতদন্তের পাঠানো হয়েছে। গোটা ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে।

ভারত বাংলাদেশ নিয়ে চিন্তিত বিদেশমন্ত্রী

অন্য দিকে ঢাকা থেকে পাওয়া খবর অনুসারে বাংলাদেশের নওগাঁর

পোরশার হাঁপানিয়া সীমান্তে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ)

গুলিতে নিহত হয়েছে ৩ জন বাংলাদেশি। তবে, এরা সবাই গরু ব্যবসায়ী

বলে জানা গেছে। সীমান্ত হত্যা নিয়ে চলতি মাসের ১১ তারিখে উদ্বেগ

প্রকাশ করেন দেশটির বিদেশমন্ত্রী  ড. এ এক আব্দুল মোমেন। সীমান্তে

একজনেরও মৃত্যু ঘটবে না সে ব্যাপারে অঙ্গীকার করেছিল ভারত। কিন্তু

দুর্ভাগ্যজনক হচ্ছে, সীমান্ত হত্যা ঘটছে। তাই আমরা উদ্বিগ্ন। বিদেশমন্ত্রীর

মন্তব্যের ১৩ দিনের মাথায় বৃহস্পতিবার ভোরে নওগাঁর দুয়ারপাল সীমান্ত

এলাকার ২৩১/১০(এস) মেইন পিলারের নীলমারী বিল এলাকায় ভারতের

ক্যাদারীপাড়া ক্যাম্পের বিএসএফ জোয়ানদের গুলিতে রনজিত কুমার

(২৫), মফিজুল ইসলাম (৩৫) এবং কামাল হোসেন (৩২) নিহত হয়।

সূত্রের খবর, বেশ কয়েকজন যুবক বুধবার রাতে ভারতের অভ্যন্তরে

অবৈধভাবে গরু আনতে যান। তারা গরু নিয়ে বাংলাদেশে ফেরার পথে

বিএসএফ জোয়ানরা তাদের লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। এ সময় অন্যরা

পালিয়ে আসতে সক্ষম হলেও তিন বাংলাদেশি যুবক গুলিবিদ্ধ হন। গরু

ব্যবসায়ী মফিজুল ইসলামের গুলিবিদ্ধ মরদেহ বাংলাদেশের ২০০ গজ

অভ্যন্তরে পড়ে ছিল। মানবাধিকার সংস্থাগুলোর হিসাবে গত বছরের প্রথম

ছয় মাসে ভারতীয় বিএসএফ’র গুলিতে ১৮ জন নিহত হয়। ২০১৮ সালে

এই সংখ্যা ছিল ১৪।


 

Spread the love

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.