My title page contents Press "Enter" to skip to content

জম্মু-কাশ্মীরের শোপিয়াতে আইএসজেকের শীর্ষ কমান্ডারের মৃত্যু




শ্রীনগরঃ জম্মু-কাশ্মীরের শোপিয়া জেলায় সুরক্ষা ফোর্স এবং সন্ত্রাসবাদীদের মধ্যে মুখোমুখি সংঘর্ষে শুক্রবার ইসলামিক স্টেট জম্মু-কাশ্মীরের শীর্ষ কমান্ডার মারা পড়েছে।

আধিকারিক সূত্র থেকে জানা গেছে যে সুরক্ষা ফোর্স আজ সকালে অশিজীপোরাতে সন্ত্রাসমূলক ঘটনার আঁচ পায়।

সঙ্গে সঙ্গেই সুরক্ষা বল একশনে চলে আসে।

সন্ত্রাসবাদীদের চ্যালেঞ্জ জানিয়ে তাদের আত্মসমর্পণ করতে বলা হয়।

তখন সন্ত্রাসবাদীরা স্বচালিত বন্দুক দিয়ে সুরক্ষা ফোর্সের ওপর গুলি ছুঁড়তে শুরু করে।

এরপর সুরক্ষা ফোর্স জবাবী হামলা করে। তাতে একজন সন্ত্রাসবাদী মারা যায়।

সূত্র বলছে যে এই সন্ত্রাসবাদীকে সনাক্ত করা গেছে।

জম্মু-কাশ্মীরের মারা যাওয়া সন্ত্রাসবাদির নাম আশফাক আহমদ

তার নাম আশফাক আহমদ ওরফে আব্দুল্লাহ ভাই। সে বারামুলার শোপোরে থাকত।

সে আই এস জে কে তে ভর্তি হওয়ার আগে হরকাতুল মুজাহিদিনের সদস্য ছিল।

সূত্র বলছে যে সুরক্ষা ফোর্সের এই অভিযান শেষ হয়ে গেছে।

রাজ্যে যাতে কোনো রকম বিরোধ প্রদর্শন না হয়, তার জন্য মুখ্য শহরগুলিতে অতিরিক্ত সুরক্ষা ফোর্স পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে।

সাথে সাথে যাতে কোনো রকম পরোচনামূলক কথাবার্তা না ছড়ায়, তার জন্য মোবাইল ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

জম্মু-কাশ্মীরের শোপিয়া এলাকায় বেশ কয়েকদিন ধরেই কয়েকটি সন্ত্রাসবাদী সংগঠন সক্রিয়।

সেখানে লোকেদের ভড়কাবার উদ্দেশ্যে এই সন্ত্রাসবাদী সংগঠন গুলির সদস্যরা নিজেদের পরিচয় গোপন করে সোশ্যাল মিডিয়ার সাহায্য নিচ্ছে।

ভূল সূচনা ছড়িয়ে যাওয়ার ফলে উত্তেজিত জনতা রাস্তায় চলে আসে।

তাতে জন্য কোন কারন ছাড়াই সুরক্ষা বলের সাথে তাদের সংঘর্ষ বাধে।

এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে সন্ত্রাসবাদীরা খুব সহজেই এলাকা ছেড়ে বেড়িয়ে যায়।

এমনিতেও পুলওয়ামার ঘটনার পর সুরক্ষা ফোর্স সন্ত্রাসবাদীদের বিরুদ্ধে বেশ কড়া মনোভাব রেখেছে।

সেইজন্যই বারবার সুরক্ষা বলের সাথে সন্ত্রাসবাদীদের মুখোমুখি সংঘর্ষ হচ্ছে।

এত বেশ কিছু সন্ত্রাসবাদী মারা গেছে।

প্ররোচনার ফলে যাতে এই সব এলাকায় কোন রকম গন্ডগোল না সৃষ্টি হয়,

তার জন্য সরকার ইন্টারনেট পরিষেবা মাঝে মাঝে বন্ধ করে দেওয়া হয়।



Spread the love

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.