Press "Enter" to skip to content

ছয় টাকার লটারি চা বাগানের শ্রমিককে কোটিপতি করেছেন

আলিপুরদুয়ারঃ ছয় টাকার লটারি এক চা বাগানের শ্রমিককে কোটিপতি করে

দিয়েছে। ঘটনাটি আলিপুরদুয়ার জেলার কালচিনি ব্লকের সাঁওতালি চা বাগানের

শ্রমিক পাইকাস বাখলার সাথে ঘটেছে। এখন বাখলা একজন কোটিপতি।

সাঁওতালি চা এস্টেটের টমাস লাইনের বাসিন্দা পাইকাস বাখলা গতকাল সন্ধ্যায়

হাসিমারা মোড় থেকে ছয় টাকায় টিকিট কিনেছিলেন। স্থানীয় লোকেদের মতে

একটি সাধারণ মানূষের মতন জীবন যাপন করা এই চা বাগান শ্রমিক আগে থেকে

লটারি টিকিট কিনতে। এর আগেও অনেক বার লটারি টিকিট কেনার পরেও তার

ভাগ্যোদয় হয় নি। তাও সে নিজের লটারি টিকিট কেনার ঝোঁক ছাড়তে পারেনি।

আগের মতন লটারি টিকিট কেনার পরে সে নিজে এই ব্যাপারে কোন খোঁজ খবর

করে নি। সে নিজে গতরাতে জানতে পারে যে এই লটারিতে প্রথম পুরস্কার তার

কেনা টিকিটে বেরিয়েছে। তবে কোটিপতি হয়ে গেলেও বাখলা নিজের জীবন যাপন

পাল্টেতে রাজি নন। তিনি কোটিপতি হয়ে যাবার পরেও স্পষ্ট করে দিয়েছেন যে

এই লটারির টাকা কিছূ অংশ তিনি গির্জার কাছে অনুদান দেবেন। বাকি টাকার

খরচের হিসেব সে মনে মনে তৈরি করে ফেলেছে। তার মতে এই টাকা ইশ্বর প্রদত্ত

তাই ইশ্বরের কাজেই এই টাকা খরচ করা উচিত। তাই গির্জায় টাকা দেবার পরে

বাকি টাকা দিয়ে সে অনাথদের কল্যানে এবং চা বাগানের অসহায় শ্রমিকদের

উন্নয়নে করবে। তবে নিজের পাশের মানূষের এই ভাগ্যোদয়ে এলাকার লোকেরাও

খুব খুশি। তারাও মনে করছে যে বাখলা যে ভাবে টাকা খরচ করার

ছয় টাকার লটারি টিকিট আগেও কিনেছে 

বাখলা জানিয়েছে যে সে আগে থেকেই এই ধরনের লটারি টিকিট কিনে আসছে।

তবে সে নিজে কোন দিন ভাবতে পারেনি যে হটাত করে তার কেনা লটারি টিকিটে

প্রথম পুরস্কার উঠে আসতে পারে। তাই যখন এই ছয় টাকার লটারি টিকিটে

পুরস্কার উঠে এসেছে তখন এটি ভাল এবং সমাজের কল্যানের খরচ করার তার

নিজের ইচ্ছে আছে।


 

Spread the love

Be First to Comment

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.