My title page contents Press "Enter" to skip to content

কয়লার গুঁড়োতে জল ছেটানো নিয়ে ঝামেলা বাড়ায় গুলি চালনায় এক মৃত




  • আউটসোর্সিং কোম্পানীর ম্যানেজারের সাথে গ্রামবাসীদের হাতাহাতি

  • গাড়িতে আগুন লাগিয়ে গ্রামবাসীদের প্রতিবাদ

ঝরিয়া/ভৌরা- কয়লার গুঁড়োতে জল ছেঁটানোর দাবি জানাচ্ছিলেন গ্রামবাসীরা। সেটাই কাল হলো তাঁদের।

বিবাদের জেরে আউটসোর্সিং কোম্পানির লোকেরা গুলি চালালো নিরীহ গ্রামবাসীদের উপর।

এই গোলাগুলিতে তিনজন গ্রামীণ আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে।

তাঁদের মধ্যে একজনের মৃত্যু হয়েছে।

গ্রামবাসীরা বলছেন যে তাঁদের সাথে আউটসোর্সিং কোম্পানির কর্মচারীদের

তর্কাতর্কির মধ্যেই মালিকের ইশারায় নিরীহ গ্রামবাসীর ওপর

গুলি চালায় আউটসোর্সিং কোম্পানির কর্মচারিরা।

ঘটনার পর পুরো এলাকা থমথম করছে।

গ্রামবাসীরা উত্তেজিত হয়ে কয়েকটি গাড়িতে আগুন লাগিয়ে দিয়েছেন।

কয়লার কম্পানীর গাড়ি গুলি পুড়িয়ে দিলেন উত্তেজিত গ্রামবাসিরা

এতে কোম্পানির কয়েকটি গাড়ী নষ্ট হয়ে গেছে।

পরে ঘটনার খবর পেয়ে ডিএসপি সহ পুলিশের বড় বড় নেতারা ঘটনাস্থলে পৌঁছেছেন

এবং উত্তেজনা নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করছেন।

সোমবার সকালে ভৌরা চার নম্বরের গ্রামবাসীরা আউটসোর্সিং কম্পানির বাইরে প্রদর্শন করেন।

তাঁরা কয়লার গুঁড়ির ওপরে জল ছেটানোর দাবি জানাতে থাকেন।

এই সামান্য ঘটনাকে কেন্দ্র করে আউটসোর্সিং কোম্পানির কর্মচারিরা গুলি চালান।

৩০ বছরের সঞ্জিত শর্মার শরীরে তিনটি গুলি লাগে। ঘটনাস্থলেই মৃ্ত্যু হয় তাঁর।

এই ঘটনায় অন্য দুই জন গ্রামবাসী আহত হয়েছেন।

তাঁদের পি এম সি এইচ এ চিকিৎসা চলছে।

কয়লা কম্পানীর গুলি চালনার পরে গাড়ীতে আগুন লাগিয়ে দেন গ্রামবাসীরা

এই ঘটনার পর গ্রামবাসীদের আক্রোশ আরো বেড়ে যায়।

তাঁদের পুরো রাগ গিয়ে পড়ে কোম্পানির গাড়ি গুলোর ওপর।

গ্রামবাসীরা এক ডজনের থেকেও বেশি গাড়িতে আগুন লাগিয়ে দেয়।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছান ডীএসপি।

সেই সময় তাঁর গাড়িকে লক্ষ্য রপে পাথর ছোঁড়া হয়।

ভৌরা এবং তার আশপাশের এলাকায় গ্রামীণ দের মধ্যে আক্রোশ বেড়ে যায়।

পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করছে। উল্লেখযোগ্য যে

আউটসোর্সিং কোম্পানির মালিক এল বি সিং।

এক বছর আগে তাঁর কাছ থেকে 100 কোটি টাকারও বেশি উদ্ধার করা হয়েছিল।

উল্লেখযোগ্য যে কয়লা খনির আশেপাশের এলাকায় আউটসোর্সিং কোম্পানিরা

ওপেন কাস্ট মাইনিং থেকে কয়লা উত্তোলন করে। এতে পরিবেশ জনিত সমস্যা বাড়ছে।

এটি শুধু ভৌরার সমস্যা নয়, উল্টে ঝরিয়া রাজাপুর প্রকল্প, বিশ্বকর্মা প্রকল্প

এবং আশেপাশের অন্যান্য প্রকল্পের ক্ষতির কারণও এটাই।

আবহাওয়া দূষিত হওয়ার ফলে মানুষ অসুস্থ হয়ে পড়ছেন।

গ্রামবাসীরা এর বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়েছেন।

তাঁরা বারবার কম্পানিকে দূষণের মাত্রা কম করার জন্য দাবি জানাচ্ছেন।

এর মধ্যে খোলা খনি গুলির আশেপাশে জল ছেটানো অন্যতম।

যতদিন পর্যন্ত বি সি সি এল নিজে কয়লা উত্তোলনের কাজ করছিল,

ততদিন পর্যন্ত আবহাওয়ায় প্রদূষণের মাত্রা কম করানোর জন্য বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়া হতো।

কিন্তু বর্তমানে আউটসোর্সিং কম্পানি গুলি কয়লা উৎপাদনের কাজে লেগে যায়।

এই কোম্পানীগুলি শুধু নিজেদের দায়িত্ব থেকে সরে এসেছে।

তারা শুধু নিজেদের লাভের কথা চিন্তা করে। সেই জন্য নিয়মও পালন করে না।

 




Spread the love

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Mission News Theme by Compete Themes.