এই রাজ্যও রোটা ভাইরাস ভ্যাক্সিনের লাগানো শুরু করা হবে – নিধি খরে

0 10
রাঁচি (সং) – মুখ্যমন্ত্রী শ্রী রঘুবর দাস ২০১৮ বর্ষের ৭ই এপ্রিল বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবসের উপলক্ষে রাজ্যে রোটা ভাইরাস ভ্যাক্সিনের অভিযান আরম্ভ করবেন|
সরকারের এই টিকাকরন বিষযে অভিযানেতে রোটা ভাইরাস ভ্যাক্সিনকে এই প্রথমবারে সংযোগ করা হোলো|
কেন্দ্র সরকারের সহায়তাতে নিজের টীকাকরন অভিযানে অংশগ্রহণ করা রাজ্যের মধ্যে ঝাড়খণ্ড দেশের মধ্যে দশম স্থানে আছে|
এই কথাগুলি স্বাস্থ্য চিকিত্সা শিক্ষা এবং পরিবার কল্যান বিভাগের প্রধান সচিব শ্রীমতী নিধি খরে আজ সুচনা ভবন সভাগারে সংবাদদাতাদের সম্বন্ধিত করার সমযে বললেন|
শ্রীমতী খরে বললেন রোটা ভাইরাস শূন্য থেকে পাঁচ বর্ষের বাচ্চাদের জন্য ডায়রিযা মত রোগের থেকে রক্ষা পাওযার জন্য দেওযা হয়|
তাঁর মতে এই শূন্য থেকে পাঁচ বর্ষের বাচ্চাদের মধ্যে প্রায় চল্লিশ শতাংশ বাচ্চাদের মৃতু্য় ডায়রিযাতেই হযে থাকে|
সরকারের লক্ষ্য ২০২০ বর্ষ অবধি ডায়রিযাকে নিয়ন্ত্রন করে নিযে যে মৃতের সংখ্যা যেন ২৫ হাজারে পৌছায়|

ভ্যাক্সিনের সুরক্ষা পাকা আছে

তিনি এও বললেন এটি একটি নতুন ওড়াল ভ্যাক্সিন আর এটি পুরোপুরি সুরক্ষিত|
এটির কোন পার্শ্ব প্রতিক্রিযাও নেই | এই ভ্যাক্সিনটি রাজ্যের সকল সরকারী হাস্পাতাল্গুলিতে টিকাকরন কেন্দ্রগুলিতে এবং আঙ্গনবাড়ি কেন্দ্র সবে নিঃ শুল্ক দেওযা হবে|
এরজন্য সকল চিকিত্সা পদকর্তাদের এবং কর্মচারীদের প্রশিক্ষণ দেওযা হয়্ছে|
শিশুদের প্রথম খোরাক প্রথম দেড় বছর বয়সে| আর দ্বিতীয় খোরাক আড়াই মাসে এবং তৃতীয় খোরাক সাড়ে তিন মাসে এই ভাবে ২.৫ এম এলের খোরাক তিন বার করে দেওযা হবে|
শ্রীমতী খরে জানালেন রোটা একটি সংক্রামক ভাইরাস যেটি ভালোভাবে হাত ধোযারপরেও থেকে যায়|
এই কারনে এই রোগ থেকে বাঁচার জন্য শিশুদের রোটা খোরাক দেওযার প্রযোজন আছে|
রাজ্যতে তিন লক্ষ শিশু প্রতিবর্ষে ডায়রিযাতে আক্রান্ত হযে থাকে যার মধ্যে দশ শতাংশের মৃতু্য় হযে থাকে|
ডায়রিযা থেকে বাঁচার জন্য মাযো বাচ্চার জন্মের সময় থেকেই স্তনপান করাবেন|
এরফলে তাদের রোগ প্রতিরোধের ক্ষমতার বিকাশ হযে থাকে| আর ডায়রিযা থেকে রক্ষার জন্য স্বচ্ছতা অভিযানের সাথে যুক্ত করাটিও বিশেষ প্রযোজন আছে|
এই সমযে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক ডঃ সুমন্ত মিশ্রা সহ চিকিত্সক এবং পদকর্তারা উপস্থিত ছিলেন|

You might also like More from author

Comments

Loading...