My title page contents Press "Enter" to skip to content

আমাদের দেশে প্লাস্টিক শিল্পের ব্যবসা পাঁচ লাখ কোটি টাকা হতে চলেছে




নয়া দিল্লিঃ আমাদের দেশে  প্লাস্টিক শিল্পের ব্যবসা পাঁচ লাখ কোটি টাকা হতে চলেছে।

আমাদের দেশে প্লাস্টিকের তৈরি জিনিসের প্রয়োগ খুব দ্রুতগতিতে বাড়ছে।

২০২৫ আসতে আসতে এই শিল্পের ব্যবসা ৫ লক্ষ কোটি টাকায় পৌঁছে যাবে বলে অনুমান করা হচ্ছে।

এর সাথে ৬০ লক্ষ মানুষ এই ব্যবসায়ের সাথে যুক্ত হয়ে রোজগার পাবেন বলে মনে করা হচ্ছে।

অল ইন্ডিয়া প্লাস্টিক ম্যানুফ্যাকচারার্স এর পক্ষ থেকে এমনই অনুমান করা হয়েছে।

বলা হয়েছে যে বর্তমানে এই শিল্প ২.২৫ লক্ষ কোটি টাকার ব্যবসা করছে।

বর্তমানে ৪৫  লক্ষ মানুষ এই শিল্প থেকে রোজগার পেয়েছেন এবং এটি ২০২৫  পর্যন্ত বেড়ে গিয়ে

৬০ লক্ষ হয়ে যেতে পারে।

বর্তমানে আমাদের দেশ থেকে ৮ আরব ডলার মূল্যের প্লাস্টিকের তৈরি জিনিস বিদেশে রপ্তানি করা হয়।

২০২৫  পর্যন্ত  এটি ৩০ আরব ডলারের কাছাকাছি পৌঁছে যাবে বলে আশা করা যাচ্ছে।

অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে যে সরকার ২০২৪  সাল পর্যন্ত দেশের অর্থব্যবস্থা

৫ লক্ষ কোটি ডলার করার লক্ষ্য রেখেছে।

এতে প্লাস্টিক শিল্প পুরোপুরি যোগদান দেবার জন্য তৈরী,

কিন্তু তার জন্য সরকারকে শিল্প আধারিত নীতি তৈরি করতে হবে এবং আমদানি শুল্ক কম করতে হবে।

এছাড়াও মাঝারি এবং ছোট শিল্পদ্যোগগুলিকে উৎসাহ দিয়ে ভালো ইন্ফ্রাস্ট্রাক্চার তৈরী করতে হবে।

এর জন্য খুব সহজে অর্থের জোগানেরও ব্যবস্থা করতে হবে।

সংগঠন এই শিল্পের জন্য ‘প্লাস্টিক বাঁচাও, পরিবেশ বাঁচাও’ শ্লোগান দিয়েছে

এবং বলেছে যে পরিবেশ দূষণের জন্য প্লাস্টিককে দায়ী করে এই শিল্পকে বন্ধ করা কোনভাবেই কাম্য নয়।

বরং অন্য প্রকল্প তৈরি করে এই শিল্পোদ্যাগকে উৎসাহিত করা দরকার।

এর জন্য মানুষের মধ্যে সচেতনতা জাগ্রত করা দরকার।

প্লাস্টিকের রিসাইক্লিং করার প্রকল্প তৈরি করাও খুব প্রয়োজন।

আমাদের দেশে প্লাস্টিকের জিনিস থেকে কচড়া তৈরী হওয়া নিয়েও সমস্যা উৎপন্ন হচ্ছে।

যদিও বর্তমানে এটি একটি বৈশ্বিক সমস্যায় পরিণত হয়েছে।

মাটির নিচে ছাড়াও সমুদ্রের গভীর পর্যন্ত প্লাস্টিকের নোংরা পৌঁছে গেছে।

সরকারি এবং বেসরকারী উপায়ে দেশে প্লাস্টিকের তৈরি জিনিস পুনর্নিমানের জন্য বারবার বলা হচ্ছে,

যাতে এই সমস্ত জিনিসের জন্য পরিবেশকে ক্ষতির হাত থেকে বাঁচানো যায়।



Spread the love
More from কাজMore posts in কাজ »

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.