Press "Enter" to skip to content

পাকিস্তানের তরফ থেকে আফগানিস্তান সীমান্ত খুলে দেওয়া হল

  • হাজার হাজার লোক দৌড়ে গেল অন্য দেশের সীমানায়

  • করোনার সংক্রমণ আরও ছড়িয়ে যাওয়ার আশংকা

  • করোনার রোগী দু’দেশেই ধারাবাহিকভাবে বাড়ছে

ইসলামাবাদ: পাকিস্তানের তরফ থেকে আফগানিস্তানের সীমান্ত দুটি জায়গায় খুলে দেওয়া হয়েছে।

এর ফলে পাকিস্তানে হাজার হাজার মানুষ আফগানিস্তানের দিকে দৌড়ে পালিয়েছে। এই

পদক্ষেপটি দুই দেশের মধ্যে নতুন করোনার সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়িয়েছে। যেমনটি হচ্ছে, পাকিস্তানের

বিশ্বব্যাপী মহামারী করোনার ভাইরাসের (কোভিড -১৯) প্রাদুর্ভাব ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং

আক্রান্তের সংখ্যা ৫০৩০ এ পৌঁছেছে এবং এ পর্যন্ত ৮৬ জন মারা গেছে। শনিবার রাতে স্বাস্থ্য

মন্ত্রণালয় এ তথ্য জানিয়েছে। পাকিস্তানের পাঞ্জাব ও সিন্ধু প্রদেশগুলি করোনার ভাইরাসের

কেন্দ্রবিন্দুতে রয়েছে। উভয় প্রদেশে, যথাক্রমে ২৪১৪ এবং ১৩১৮ সংক্রামিত রোগগুলির নিশ্চিত

হওয়া গেছে। খাইবার পাখতুনখোয়াতে ৩১ জন মারা গেছেন এবং ৬৯ জন সংক্রামিত হয়েছেন, সিন্ধু

প্রদেশে ২৮ জন এবং পাঞ্জাবের ২১ জন আক্রান্ত হয়েছেন। বেলুচিস্তানে ২২০ টি এবং গিলগিত-

বালতিস্তানে ২১৫ টি মামলার বিষয়টি নিশ্চিত হয়েছে। রাজধানী ইসলামাবাদে ১১৩ জন আক্রান্ত

এবং একজনের মৃত্যু হয়েছে। পাকিস্তান-অধিকৃত কাশ্মীরে ৩৪ জন কোরানার সংক্রমণে রয়েছে।

বিভিন্ন হাসপাতালে ৪১৬৩ জন রোগীর চিকিত্সা করা হচ্ছে, এর মধ্যে ৫০ জন গুরুতর অবস্থায়

এবং ৬২৬২ জনকে সুস্থ হওয়ার পরে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। এটি মোট আক্রান্ত রোগীদের ১৫.২

শতাংশ।

পাকিস্তানের তরফ  থেকে টেস্ট বাড়ানো হয়েছে

পাকিস্তানের স্বাস্থ্য মন্ত্রক জানিয়েছে যে দেশে এই পর্যন্ত ৫৭৮৮ টি পরীক্ষা করা হয়েছে এবং আগামী

দিনে পরীক্ষার সংখ্যা বাড়ানো হবে। সিন্ধু প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী সৈয়দ মুরাদ আলী শাহ শনিবার রাতে

এক বিবৃতিতে বলেছিলেন যে প্রতিদিন বেশি বিচারের কারণে নিশ্চিত মামলার সংখ্যা বাড়ছে। তিনি

বলেছিলেন যে সংক্রমণের বেশ কয়েকটি মামলার পরে করাচির দক্ষিণ বন্দর শহর পূর্ব অংশের ১১

টি সেক্টর পুরোপুরি সিল করে দেওয়া হয়েছে। তথ্য সম্প্রচার মামলায় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী

ফিরদৌস আশিক আওয়ান গতকাল গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, মহামারীটির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়ে

পুনর্বিবেচনা করতে এবং মঙ্গলবার শেষ হওয়া লকডাউনটি সম্প্রসারণের জন্য সরকার সোমবার

একটি উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক করবে। এর আগে বৃহস্পতিবার পাকিস্তান সরকার অভ্যন্তরীণ ও

আন্তর্জাতিক সমস্ত ফ্লাইট স্থগিত করে ২১ এপ্রিল মধ্যরাতে বাড়িয়েছিল। তবে দুই দেশের এই সীমানা

হঠাত করে খুলে দেওয়া আফগানিস্তান সরকার চিন্তিত। তারা ভাল করে বুঝতে চাইছে যে হাজার

হাজার লোক তার দেশে পাকিস্তান পক্ষ থেকে চলে আসার ভিতরে কারা কোরোনা সংক্রমন নিয়ে

এসেছে বা তাদের ভিতরে চেহারা লুকিয়ে কতজন তালিবানী এসেছে।


 

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  

One Comment

Leave a Reply

Mission News Theme by Compete Themes.
error: Content is protected !!