সাইবেরিয়া তরফে চলে যাচ্ছে পৃথিবীর উত্তর মেরু

সাইবেরিয়া তরফে দিকে চলে যাচ্ছে পৃথিবীর উত্তর মেরু
Spread the love
  • তীব্র গতিতে হচ্ছে চুম্বকীয় ক্ষেত্র পরিবর্তন

  • 1980 সাল থেকে বেড়ে গেছে পরিবর্তন গতি

  • এর আগে আর্কটিক সমুদ্রের মাঝে ছিলো

  • পৃথিবীর গভীরে তরল লোহা বয়ে যাচ্ছে

নয়াদিল্লীঃ সাইবেরিয়া আগামী দিনে পৃথিবীর নতূন উত্তর মেরু হতে চলেছে।

পৃথিবীর ম্যাগনেটিক এরিয়ার এই পরিবর্তনও দেখা যাচ্ছে।

বিজ্ঞানীরা আন্দাজ করেছেন যে এর পরিবর্তনের গতি হঠাত্ খূব তীব্র হয়ে গেছে।

তাই হয়তো আগামী ৫০ বছরে পৃথিবীর উত্তর চুম্বকীয় মেরু এবার রাশিয়ার সাইবেরিয়াই হয়ে যেতে পারে।

বৈজ্ঞানিক তথ্য অনুযায়ী প্রথম পৃথিবীর উত্তর চুম্বকীয় কেন্দ্র কানাডার উত্তর দিকে ছিলো।

প্রায় একশত বছর আগে এটি আর্কটিক সমুদ্রের মাঝে থাকতো।

এখন যেভাবে এটি সরে যাচ্ছে তাই আন্দাজ করা হচ্ছে যে এর পরে আমরা উত্তর মেরু বললে সাইবেরিয়াকে বূঝতে পারবো।

ওসলো (কানাডা) থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী এই গবেষণার জন্য বিজ্ঞানীরা এখন ম্যাগনেটিক পোল পরিবর্তনের একটি মডেলও প্রস্তুত করেছেন।

যার ফলে এটি জানা যায় যে কখন এবং কিভাবে পরিবর্তিত হয়েছে।

একই মডেলের ভিত্তিতে এই প্রান্তের রুশের সাইবেরিয়ার দিকে এগিয়ে যাওয়া প্রমাণ পাওয়া যায়।

এই গবেষণামূলক দলের সাথে যুক্ত ব্রিটিশ জিয়োলজিকাল সার্ভে প্রধান প্রধান সিয়রন বেগান বলেন

যে গত 80 বছরে কোন বিশেষ পরিবর্তন ঘটেনি।

1980 সাল থেকে এই অবস্থার দ্রুত পরিবর্তন হচ্ছে।

এখন বর্তমানে এই পরিবর্তন প্রায় 50 কিলোমিটার প্রতি বছর গতিতে চলছে।

বিজ্ঞানীরা এই পরিবর্তনের একটি মডেল তৈরী করছেন।

ঘটনা প্রকাশ পাবার পরে আমেরিকা সেনা মডেল তাড়াতাড়ি তৈরী করার অনুরোধ জানিয়েছে।

সমুদ্র এবং আকাশে দিক নির্ধারণের জন্য যন্ত্রে পৃথিবীর এই ম্যাগনেটিক পোলের অবস্থান খুব গুরুত্বপূর্ণ।

ম্যাগনেটিক পোল সঠিক না থাকলে আকাশে উড়ন্ত বা সমুদ্রে চলতে থাকা জাহাজটি ভুল পথে চলবে।

বিশেষ করে সামরিক কর্মীদের জন্য এটি ভুল বড় ক্ষতি করতে পারে।

একইভাবে সাধারণ ফ্লাইট এবং নয় ট্রান্সপোর্টেও এই ঝামেলা থেকে সমস্যা হতে পারে।

সব প্রধান সামরিক শক্তিগুলি এই পরিবর্তনের কারণে নিজের ভিতরে অনেক পরিবর্তন করছে।

সাইবেরিয়ার নতূন মডেল আসবে আগামী ৩০ জানূয়ারী

বিজ্ঞানীরা মনে করেন যে পৃথিবীর গভীরে তরল অবস্থ্যায় থাকা লোহা সাইবেরিয়ার দিকে সরে যাচ্ছে।

তাই ম্যাগনেটিক পোল এর সাথেই সরে যাচ্ছে।

এই সম্পর্কে আগামী 30 জানুয়ারী একটি রিপোর্ট প্রকাশ করা হবে।

কলোরাডো বিশ্ববিদ্যালয়ের জিওমাগনেটিক আর্মড চুলিয়ট বলছে যে এই পরিবর্তন গতির গতি এত দ্রুত হয়ে যাচ্ছে

যে এর ফলে পৃথিবীর পৃষ্ঠের উপরে বড় বড় দূর্ঘটনাও ঘটতে পারে।

বিশেষ করে দিক বিভ্রম এর কারণে এটি ভুল হতে পারে।

এদিকে তাদের সংশোধন করা খুব জরুরি।

বিজ্ঞানী এটাও পরিষ্কার করে বলেন যে এই পরিবর্তনের কারণে আপনার স্মার্টফোন থেকে নিজের বা নিজের স্থান নির্ধারণকারীদেরও এই ম্যাগনেটিক এরিয়া পরিবর্তন হতে সমস্যা হয়।

এই নতুন সেরে এগুলি তৈরি করে সকল মানুষ নতুন চৌম্বক ক্ষেত্র উপলব্ধ করা আবশ্যক।

তাই বিশেষ করে যারা সরঞ্জাম জন্য যারা স্যাটেলাইট রেডিও তরঙ্গের উপর নির্ভর করে কাজ করছে।

দ্বিতীয় ভূমি টাওয়ার থেকে কাজকারী যন্ত্রের উপর এটি খুব কম প্রভাব ফেলবে

তবে পাঁচ বছরের মধ্যেও তাদের পরিবর্তন হবে।

Loading...