Press "Enter" to skip to content

ঝাড়খণ্ডের কেউ যেন ক্ষুধার্ত না থাকে –মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেন

  • আমরা সকলেই এই সংগ্রামে ঐক্যবদ্ধ

  • একে অপরের সাথে দূরে থেকে জুড়ে থাকুন

  • দুর্যোগের সময়ে সবাইকে একসাথে থাকতে হবে

  • একে অপরের থেকে দূরে থাকুন তবে মনের কাছে

প্রতিবেদক

রাঁচি: ঝাড়খণ্ডের কেউ যেন ক্ষুধার্ত না থাকে, এই কথা বলার সাথে সাথে মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেন

সেই ব্যাপারে বেশ কিছূ ব্যাবস্থা নেবার কথা বলেছেন। মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন যে এই বিপর্যয়ের সময়ে

অন্যান্য রাজ্যে আটকা পড়া মানুষের সেবায় নিযুক্ত যুবকদের প্রণাম জানাই। এক সাথে থেকে এই

মহামারীর বিরুদ্ধে লড়াই করার সময় এসেছে। তিনি বলেছিলেন যে আমি এটি আগেও বলেছি। এই

মহামারী জাতি, ধর্ম বা ধন – দারিদ্র্যের মধ্যে পার্থক্য করে না। আমরা এই সংগ্রামে সবাই এক।

আমাদের একে অপর থেকে দূরে থাকা উচিত, তবে অন্তরগুলি সংযুক্ত রাখা উচিত। বাড়িতে থাকুন –

নিরাপদে থাকুন।

ঝাড়খণ্ডের কেউ বলতে সবার খবর রাখতে হবে

মুখ্যমন্ত্রী দুমকের জেলা প্রশাসককে চক্রপাথর গ্রামের পরিস্থিতিটি খতিয়ে দেখার এবং জনগণকে

প্রয়োজনীয় সহায়তা প্রদান ও তাদের অবহিত করার নির্দেশনা দিয়েছেন। মুখ্যমন্ত্রী বলেছিলেন যে

ঝাড়খণ্ডের বাসিন্দা, কোনও ডুমকা বাসিন্দা যেন না খেয়ে ঘুমোবেন, তাকে অগ্রাধিকার দিন। সমস্ত

ডাল-ভাটা কেন্দ্রগুলি সুষ্ঠুভাবে পরিচালিত হয় তাও নিশ্চিত করুন। মুখ্যমন্ত্রীকে বলা হয়েছিল যে

দুমকার রামেশ্বর থানা এলাকার চক্রপাথর গ্রামের মানুষের জীবিকা নির্বাহ করা হচ্ছে জঙ্গলের কাঠ

বিক্রি করে। লকডাউনের কারণে এই কাজটি বন্ধ রয়েছে, যা গ্রামবাসীদের খাদ্যশস্যের সমস্যা তৈরি

করেছে। রেশন এখনও উপলব্ধ করা হয় নি। মামলার তথ্যের পরে মুখ্যমন্ত্রী জেলা প্রশাসককে

উপরোক্ত নির্দেশনা দিয়েছেন।

থ্যালাসেমিয়ায় আক্রান্ত মেয়ের চিকিত্সা শুরু

মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশের পরে থ্যালাসেমিয়ায় আক্রান্ত দুজন দরিদ্র মেয়ের চিকিৎসা শুরু হয়। জেলা

প্রশাসক পূর্ব সিংভূম মুখ্যমন্ত্রীকে জানিয়েছিলেন, উভয় শিশুকে গাড়ির ব্যবস্থা করে বিডিও মুসাবানি

এমজিএম হাসপাতালে ভর্তি করেছেন। তাত্ক্ষণিকভাবে দুটি ইউনিট রক্ত শিশুদের জন্য উপলব্ধ করা

হয়েছে। মুখ্যমন্ত্রীকে বলা হয়েছিল যে মুসাবাণী ব্লকের গোহলা গ্রামের (পাল তোলা) দুই দরিদ্র মেয়ে

থ্যালাসেমিয়ায় ভুগছে। তাদের জীবন বাঁচাতে দয়া করে তাদের রক্ত দিয়ে বাঁচান।


 

Spread the love

4 Comments

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

error: Content is protected !!