জয়সলমের: পাকিস্তানের ভিতরে আশি কিলোমিটার এলাকা ভারতীয় সেনা
বাহিনী দখল করেছিল। এটি ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে ঘোষিত সর্বশেষ যুদ্ধের
ঘটনা।

একাত্তরে বাংলাদেশের স্বাধীনতার সময় পশ্চিম সীমান্তে ভারতীয় সৈন্যরা এই
বীরত্ব দেখিয়েছিল। আজ থেকে ৪৮ বছর আগে ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধে ছাছরো
এলাকা  ভারত জিতে নিয়েছিলো।

ছাছরো হল পাকিস্তানের সিন্ধু প্রদেশের থারপারকার জেলায় অবস্থিত তহসিল
সদর। এটি রাজস্থানের বাড়মের থেকে প্রায় ১৬০ কিলোমিটার দূরে এবং গাদ্রা
সড়ক সীমানা থেকে মাত্র ৭০ কিমি দূরে।

পাকিস্তানের সাথে একাত্তরের যুদ্ধে ভারতীয় সেনাবাহিনী আশি কিলোমিটার
অবধি পাকিস্তানের ভিতরে এই এলাকা জয় করেছিল। একাত্তরের ১৬ ডিসেম্বর
পাকিস্তানের জেনারেল নিয়াজী ৯৩ হাজার সৈন্যের সাথে ভারতীয় সেনাবাহিনীর
কাছে আত্মসমর্পণ করেছিলেন। পূর্ব দিকে এই ঘটনা ঘটার মধ্যে পশ্চিমী সীমানায়
ভারতীয় সেনা পাকিস্তানের ভিতরে ঢুকে গিয়েছিলো।

বাংলাদেশের মুক্তি সংগ্রামের কারণে এই ঘটনা সেই সময় ইতিহাসে বা লোকচর্চায়
বেশি আসে নি। তবে ভারতীয় সেনা বাহিনী এই দিনে প্রতি বছর এই বিজয় কে
পালন করে চলেছে।

এই যুদ্ধে, জয়পুরের ১২ জন জওয়ান সহ রাজস্থানের ৩০৭ জন সাহসী পুত্র শহীদ
হন। এই যুদ্ধে দুটি মোর্চায় যুদ্ধ হয়েছিল, জয়পুরের ব্রিগেডিয়ার ভবানী সিংয়ের
নেতৃত্বে ছাছারো অঞ্চলটি রাজস্থানের সীমান্তে জয় লাভ করেছিল।

পাকিস্তানের শাসনে অস্থির হয়ে ওঠা সেই এলাকার হিন্দুরা স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলে।

এই জমিটি পরে সিমলা চুক্তিতে ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছিল।

সেই সময় পঞ্চাশ হাজার হিন্দু পরিবার রাতারাতি ভারতে আসতে বাধ্য হয়েছিল।

তারা বেশ কয়েক মাস ধরে তাঁবুতে রাত কাটিয়েছিল এবং তারা এখনও তা ভুলে
যায় না।

পাকিস্তানের ভিতরে দখল এলাকা ফিরিয়ে দেওয়া হয়

 

১৯৬৭ সালের ১ জুন লেফটেন্যান্ট কর্নেল এন এস উথায়ার নেতৃত্বে একটি বিশেষ
সেনাদল তৈরি হয়েছিলো।

এর নাম ছিলো স্পেশাল ফোর্সেস 10 প্যারা কমান্ডস ‘দ্য ডেজার্ট স্কর্পিয়ো।

এই ভারতীয় বিশেষ ফোর্স ১৯৭১ সালের ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধে ‘অপারেশন
ক্যাকটাস লিলি’ চলাকালীন পাকিস্তানের অভ্যন্তরে প্রবেশ করা এবং সিন্ধু অঞ্চলে
৮০ কিলোমিটারেরও বেশি আক্রমণ করার দায়িত্ব পেয়েছিলো।

সেই দশ প্যারা ফোর্স একাত্তরের ৬ ডিসেম্বর রাতে যুদ্ধের সময় শত্রুদের মাটিতে
ছাছরো, বীরওয়াহ, নগরপুরার, ইসলাম কোটে একাধিক আক্রমণ চালিয়েছিল।

এই আক্রমণগুলি ভারতীয় বাহিনীকে শত্রুদের অভ্যন্তরে প্রবেশ করতে দেয় এবং
বিশাল অঞ্চল দখল করতে পারে। সেই সময় পাকিস্তানের সেনা ভারতীয় সৈন্য দল
কে নিজেদের দিকে এগিয়ে আসতে দেখে পালিয়ে গিয়েছিলো।

এই অদম্য সাহসের কারণে, এই প্লাটুনকে ব্যাটেল অনার ছাছরো এবং থিয়েটার
অনার সিন্ধু ভূষিত করা হয়েছিল। দূরদর্শিতার এই সাহসী নেতৃত্বের ফলস্বরূপ,
মহাবীর চক্র তত্কালীন অবসরপ্রাপ্ত কমান্ডিঁগ অফিসার ব্রিগেডিয়ার, সওয়াই
ভবানী সিংকে ভূষিত করা হয়েছিল।

এছাড়াও, ইউনিটটি দুটি বীরচক্র, তিনটি সেনা পদক এবং একটি মেনশন-ইন-
ডিসপ্যাচও ভূষিত হয়েছিল।

এই উপলক্ষে শুক্রবার দশটি প্যারা কমান্ডো মরুভূমি স্কর্পিয়ো আজকের দিনে
একটি বিশেষ অনুষ্ঠানে ছাছরো দিবস উদযাপন করেছে।

বিপুল সংখ্যক প্রাক্তন সৈনিক ও তাদের পরিবারও অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছিলেন।


 

Spread the love