ঝাড়খন্ড মুক্তি মোর্চা নেতা হেমন্ত সোরেন সংঘর্ষ যাত্রায় কসমার পৌঁছোলেন

petwar
Spread the love

পেটরওয়ার – ঝাড়খন্ড মুক্তি মোর্চার সংঘর্ষ যাত্রা রবিবার কসমার পৌঁছালো।

জরীডীহ ব্লকের পীপরা মোড়ে একটি জনসভার পর কুসমাটাঁড়ে কসমারের কার্যকর্তারা

এই সংঘর্ষ যাত্রাকে জোরদার স্বাগত জানায়। তাদের সাথে শয়ে শয়ে ছোট বড় গাড়ীও ছিল।

এই গাড়ীর জুলুসের সাথে সংঘর্ষ যাত্রা খৈরাচাতর, বগদা, জামকুদর, মঞ্জুরা হয়ে কসমার পৌঁছায়।

সেখানকার বাজারটাঁড়ে পৌঁছে দলের কার্যকরী অধ্যক্ষ সহ রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেন জনসভায় ভাষণ দেন।

রঘুবর সরকার কোন কাজ করে নি

তিনি বলেন যে রঘুবর সরকার গত ৪ বছর থেকে রাজ্যে শাসন চালাচ্ছে।

এই সরকারের শাসনে রাজ্যের মানুষের দুর্গতি চরম সীমায় পৌঁছেছে।

বিগত ১৮ বছরের মধ্যে এই সরকার সব থেকে নিষ্কর্মা প্রমাণিত হয়েছে।

সরকার মানুষের সুখ স্বাচ্ছন্দের দিকে বিন্দুমাত্রও নজর দেয়নি।

এই সরকারকে উঠিয়ে ছত্তিসগঢ়ে ছুঁড়ে ফেলে দেওয়া উচিৎ।

তিনি বলেন যে রাজ্যে আদিবাসী এবং সংখ্যালঘুদের শোষণ করা হচ্ছে।

এমন একটা দিনও যায় না, যেদিন কোন মহিলার সাথে অত্যাচার হয় না।

রাজ্যের প্যারা শিক্ষকদের নিজেদের অধিকার পাবার জন্য লড়াই চালিয়ে যেতে হচ্ছে। তাঁরা সংঘর্ষ চালিয়ে যাচ্ছেন।

সরকার তাদের দমন করার জন্য লাঠি চালাচ্ছে। তাদের জেলে পুরে দেওয়া হচ্ছে।

সোরেন বলেন যে এক দিকে রঘুবর দাস নিজেকে মজদুরের ছেলে বলছেন, অন্য দিকে মজদুর বিরোধী নীতি তৈরী করছেন।

তিনি বলেন যে বিজেপির উন্নয়নের কথা শুধু বৈদ্যুতিক পোলের ওপর টাঙ্গানো হোর্ডিং ও ব্যানারেই সীমাবদ্ধ।

আসলে এসব কিছুই হচ্ছে না। রাজ্যের জনসাধারণের দুর্গতি হচ্ছে, কিন্তু সরকারের এই দিকে কোন ভ্রুক্ষেপ নেই।

সরজমিনে খতিয়ে দেখলে দেখা যাবে যে রাজ্যে কোন কাজই এই সরকার করে নি।

সোরেন বলেন যে রঘুবর দাসের শাসনকালে পঞ্চায়ত থেকে শুরু করে ব্লক ও জেলা স্তরের

সব সরকারী অফিসে দুর্নীতি ছড়িয়ে গেছে। ঘুষ না দিলে কোথাও কোন কাজ হয় না।

বিজেপি উন্নয়নের কথা বাদ দিয়ে ধার্মিক উন্মাদনা ছড়াচ্ছে।

হিন্দু, মুসলমান, পিছিয়ে পড়া মানুষের ওপর যত অত্যাচার এই সরকারের শাসনকালে হয়েছে,

সেরকম আর কখনও হয় নি।

বিজেপি কখনই চায় নি যে আদিবাসী, দলিত, ব্যাকওয়ার্ড মানুষ এই সমাজে এগিয়ে আসুক এবং শিক্ষিত হোক।

Author: Bangla R khabar

Loading...