• গোয়ালপোখার থানায় প্রচুর সাইবেরিয়ান পাখিদের বাসা
  • পুলিশের সবাই এদের প্রতি খুব সাবধান
  • নিরাপদ বোধ করে বেশি পাখী আসে
  • পর্যটকরাও তাদের দেখতে আসেন
প্রতিনিধি

ইসলামপুরঃ বিদেশি অতিথিরা সকাল হলেই হইচই করা শুরু করে। তবে এটি

প্রত্যন্ত সাইবেরিয়ার পাখিদের কলরম মানুষের শোরগোল নয়। তাই থানা প্রাঙ্গণে

উপস্থিত সমস্ত পুলিশ সদস্যের ঘুম এই বিদেশি পাখির কলরব শুনে খোলে। এই

পাখিরা থানা চত্বরে বড় বড় গাছে শিবির আস্তানা বেঁধেছে।

গত কয়েক বছর ধরে তাদের আগমন প্রক্রিয়া শেষে, এখন পুরো থানার কর্মীরাও

এই প্রযুক্তিগত বিদেশি অতিথিদের পুরো যত্ন নেন। ধীরে ধীরে এখানকার

পরিবেশটি সাইবেরিয়ান ক্রেনে পরিবর্তিত হয়েছে। তাই এখন সেখানে

বসবাসকারী পাখির সংখ্যা বাড়ছে। গোয়ালপোখার থানা হ’ল উত্তর দিনাজপুর

জেলার থানা। বিদেশি পাখির আগমন প্রক্রিয়া কয়েক বছর আগে শুরু হয়েছিল।

প্রথম থেকেই পুলিশ সাবধান ছিল যে এই পাখিদের এখানে থাকার কোনও ভয় নেই

এবং তাদের বিরক্ত করা উচিত নয়। এই কারণে, থানায় উপস্থিত পুলিশ সদস্যরা

নিজেরা তীব্র শব্দ করেন নি বা অন্য কাউকে এ জাতীয় আচরণ করতে দেন নি,

যাতে পাখিরা ভয় পায়।

এই সুরক্ষা সম্ভবত বিদেশী পাখি দ্বারা উপলব্ধি করা হয়েছে। এ কারণে সাইবেরিয়া

থেকে আগত পাখির পতাকা ধীরে ধীরে অনেক গাছের উপর বসতে শুরু করেছে।

ধীরে ধীরে তাদের সংখ্যা এখানে বাড়ছে। এখানে শীতের কয়েক মাস পরে, এই

পাখিগুলি উড়ে এসে তাদের দেশে ফিরে যায়। এই সময়ে, গোয়ালপোখার পুলিশ

তাদের যত্ন নিতে থাকে। এসময় আশেপাশের পুলিশদের একটি সুস্পষ্ট নির্দেশনা

রয়েছে যে আশেপাশে কোনও শব্দ বা ফটকা না ফাটান হয়।

এমনকি বেশি জোরে গানগুলিও নিষিদ্ধ করা হয়েছে যাতে পাখিদের কোনও সমস্যা

না হয়।

বিদেশি পাখীদের ব্যাপার থানার সবাই এখন সচেতন

স্টেশন ইনচার্জ বিশ্বনাথ সিং বলেছেন যে পরিষ্কার করতে কিছুটা অসুবিধা হওয়ার

পরেও এখনই আসাই ভাল। কমপক্ষে এই থানায় নিরাপত্তা আছে; এটা বিদেশি পাখি

বুঝতে পারে, এটি গর্বেরও বিষয়। পাখির মলগুলিতে দুর্গন্ধযুক্ত নিয়মিত পরিষ্কার

হয়। তবে পুলিশ তাদের প্রতিদিনের রুটিনে একই পরিবেশ রেখেছিল।

দিন দিন অতিথির সংখ্যা বাড়তে থাকায় পুলিশও এই পাখির জন্য আশেপাশের বড়

বড় গাছের সুরক্ষার দিকে নজর দিচ্ছে। ফলস্বরূপ, এখন পর্যটকরাও এই পাখিগুলি

দেখতে থানায় আসছেন। এই পর্যটকদের মধ্যে কয়েকজন স্টেশন ইনচার্জকে

জানিয়েছে যে বিদেশি অতিথিদের মধ্যে কয়েকজন হর্ন বিল স্টার্ক নামে পাখিও

রয়েছে, যার জনসংখ্যা দ্রুত হ্রাস পাচ্ছে।

এ সম্পর্কে তথ্য পাওয়ার পরে পাখির সুরক্ষার দিকে পুরো থানা আরও সজাগ হয়ে উঠেছে।

Spread the love