My title page contents Press "Enter" to skip to content

এক্সিট পোল আসলে ব্যাবসা সেটাকে চূড়ান্ত মেনে নেওয়া ভূল হবে




  • এই পোল এবং সাট্টা বাজারের সম্বন্ধ আসলে কি

  • এই কাজ করার টাকা আসলে কে খরচ করে

  • এক দিনের বিজ্ঞাপন থেকে এত টাকা আসবে না

  • দিল্লী আর উত্তর প্রদেশের নিয়ম আলাদা কেন

রজত কুমার গুপ্ত

রাঁচিঃ এক্সিট পোল কাল রাত থেকে আলোচনার একটি বিষয়।

সাধারন মানুষের কাছে এটি নিজের রাজনৈতিক জ্ঞান দেবার ভাল বিষয়।

তাছাড়া এই ব্যাপারে আলোচনা করে ভাল টাইম পাস করা যায়।

কিন্তু কখনও ভেবে দেখেছেন কি যে এই এক্সিট পোল থেকে আসল লাভ কারা পায়।

ব্যাপারটা বূঝে দেখার জন্য আজকের শেয়ার মার্কেটের হাল দেখুন।

কাল রাতে এক্সিট পোল আসার পরে আজ শেয়ার বাজার খোলার এক মিনিটে তিন লাখ কোটি টাকার লাভ কিছূ লোকের পকেটে গেছে।

পুরে দিন মিলিয়ে যদি দেখা যায় তো মোট পাঁচ লাখ কোটি টাকার ব্যাবসার লাভ হয়েছে।

শেয়ারবাজার আজ হাজার পয়েন্ট বেড়েছে।

একটি সাধারণ অনুমান অনুযায়ী, এই শেয়ার বাজারের মেজাজ ওপরে তখনই যায় যখন বাজারের বড় রাঘব বোয়ালরা বূঝতে পারে যে সব কিছূ তাদের পক্ষে আছে।

আমাদের মধ্যে অনেকেই শেয়ার কেনা বেচার সাথে যূক্ত কিন্তু যদি তাঁদের প্রশ্ন করি যে

আজকের এই পাঁচ লাখ কোটির ভিতরে আপনি কত পেলেন তো কোন জবাব থাকবে না।

আসলে এটাই হলো এক্সিট পোলের আসল খেলা। মানে আবার নরেন্দ্র মোদির সরকার আসছে, এটা জানা গেলেই শেয়ার মার্কেট ওপরে উঠে গেল।

কিন্তু আসল ব্যাপারটা তো শুধু শেয়ার বাজার নিয়ে নয়।

এর আলাদা আছে সাট্টা বাজার।

আমরা সবাই এই বাজারের কথা জানি। সোশাল মিডিয়াতে কার পক্ষে কোন দর চলছে সেটাও জানান হয়।

কিন্তু কেউ কি জানে যে এই সাট্টা বাজার আসলে কে বা কি করে চলে।

সেখানেও তো কোটি কোটি টাকার লাভ হয়।

সেই টাকা কার পকেটে যায়. সেটা বূঝে নেবার সময় এসে গেছে।

এক্সিট পোল করাতে গেলে প্রতি মানূষ প্রায় ৫০ টাকা লাগে

এবার সরাসরি চ্যানেল গুলির এক্সিট পোল নিয়ে আলোচনা করি।

এই ধরনের সার্ভে করতে প্রচুর টাকা এবং সময় লাগে।

যে চ্যানেলগুলি কালকে নিজেদের স্যাপ্লেল নিয়ে আলোচনা করেছে তারা কেউ এটা জানায় নি যে খরচ কত হয়েছে।

সামান্য হিসেবে এই ধরনের সার্ভে করতে প্রতি মানূষ প্রায় ৫০ টাকা খরচ হয়।

মানে যে চ্যানেল দশ লাখ মানূষের সাথ সার্ভে করেছে সে প্রায় পাঁচ কোটি টাকা খরচ করেছে।

এই টাকা একদিনের বিজ্ঞাপনে তো ফেরত আসে না।

তাহলে কি চ্যানেল গুলি লোকসান করে এই কাজ করেছে।

এখানেই আসে এক্সিট পোল এবং সাট্টা বাজারের সম্পর্ক।

সাধারণ মানূষ এই সার্ভ দেখে আলোচনা করে কিন্তু আসল লাভ যায় অন্য কারুর পকেটে।

এবার দেখুন সার্ভের রিপোর্টের গোলমালে।

রিপোর্ট বলছে যে দিল্লী থেকে সব কটা সিট বিজেপি জিতে যাবে।

তার কারণ হিসেবে বলা হয়েছে যে যেহেতু কংগ্রেস এবং আম আদমী পার্টী আলাদা আলাদা নির্বাচনে ছিলো তাই তাঁদের ভোট বিজেপির দিকে চলে গেছে।

এর পরে উত্তর প্রদেশের ব্যাপারে জানূন। সেথানে এই এক কথা বলা হয়েছি কিন্তু তথ্য পাল্টে গেছে।

এখানে বলা হয়েছে যে বসপা এবং সপা একসাথে নির্বাচনে নামার ফলে তাঁদের ভোটের বেশ কিছূ ভাগ বিজেপিতে চলে গেছে।

এই এক রকমের নিয়ম দুই রাজ্যে আলাদা আলাদা কি করে হতে পারে সেটা মানূষ নিজের বুদ্ধি দিয়ে বোঝার চেষ্টা করুক।

এই নিয়ে কেউ প্রশ্ন তুলবে না আর তুললেএ চ্যানেল তার জবাব দেবে না।

তাই এই নিয়ে মাথা না ঘামিয়ে আরামে থাকূন।

যা হবার হবে সেটা তো ২৩ মে হয়েই যাবে।

তবে এর পর থেকে আর কেউ আপনাকে বোকা বানাতে পারবে না।




Spread the love
More from ব্যবসাMore posts in ব্যবসা »

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Mission News Theme by Compete Themes.