• সিঙ্গাপুর থেকে ফিরে স্ত্রীকে বিপদ সম্পর্কে জানিয়েছিলো 

  • স্বামী বহাল তবিয়তে কিন্তু বৌয়ের ভয় কাটেনি

  • এলাকার মানুষের মধ্যে এই রোগের সন্ত্রাস ছড়িয়ে পড়েছিল

প্রতিনিধি

ঢাকাঃ মৃত্যুর ভয় তাও আবার করোনা ভাইরাসের জন্য। সেটা প্রথম বার

অনুভব করা গেছে বাংলাদেশে। বাংলাদেশে কোনও নাগরিকই এই রোগে

আক্রান্ত হয় নি। তা সত্তেও মৃত্যূর ভয় ছড়িয়ে পড়েছে। এটা সত্যি যে

কিছু বাংলাদেশি নাগরিকের সিঙ্গাপুরে চিকিত্সা চলছে। মৃত্যুর ভয় নিয়ে

এই অঘটন ঘটেছে সিঙ্গাপুর থেকে ফিরে আসা টাঙ্গাইলের এক ব্যক্তির

সাথে। ৪২ বছর বয়সী আব্বাস আলী সিঙ্গাপুর থেকে ফিরে এসেছেন।

বৃহস্পতিবার দেশে ফেরার পরে, তিনি তার স্ত্রীকে করোনা ভাইরাসের ঝুঁকি

সম্পর্কে অবহিত করেছিলেন। এই তথ্যের কারণে স্ত্রীর মৃত্যুর আশঙ্কা এমন

ছিল যে সে বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে যায়। তবে পরে জানা গেছে যে মহিলা

তার মাতৃগৃহে পালিয়ে গেছেন।

এই ঘটনার বিষয়টি প্রকাশ্যে আসার পরে উপ-জেলার কাশিল ইউনিয়ন

কাউন্সিলের সভাপতি মিরশ রাজিক জানিয়েছেন যে মৃত্যুর ভয় অন্যদের

মধ্যে ছড়িয়ে পড়েছে। আব্বাসকে সেখানে হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে

অজানা বিস্ময়ে ভোগা মানুষের মানসিক ত্রাণ দেবার জন্য। হাসপাতালের

চিকিত্সকরা স্পষ্ট করে দিয়েছেন যে এই ব্যক্তির মধ্যে করোনা ভাইরাসের

কোনও চিহ্ন পাওয়া যায় নি। এর পরেও আব্বাসকে সতর্কতা হিসাবে

ঢাকায় পাঠানো হয়েছে যাতে এলাকার লোকেদের এই মৃত্যুর ভয় শেষ

করা যায়। এই সময়ে, তিনি চিকিত্সকদের বলেছিলেন যে তাঁর জ্বর বা

ঠান্ডা নেই। তাঁর মতে, কিছু লোক তাকে মানসিকভাবে বিরক্ত করতে

মৃত্যুর ভয় নিয়ে এই গুজব ছড়িয়েছে। এই কথা রটনা হবার পরেও হয়তো

তার নিজের স্ত্রী ভয় পেয়ে পালিয়ে গেছেন। তবে বৌ নিজের বাপের

বাড়িতে আছে বলে জানা গেছে।

মৃত্যুর ভয় চীনা মানূষ হাসপাতাল ভর্তি

চীনা নাগরিক জাঙ্গোই এখানে কাজ করা একটি চীনা প্রতিষ্ঠানের

কর্মকর্তা। তিনি সম্প্রতি দেশ থেকে ফিরে এসেছেন। এখানে ফিরে আসার

পর তাকে প্রচন্ড ঠান্ডা এবং জ্বর হয়েছে। এই তথ্যের ভিত্তিতে তাকে

তত্ক্ষণাত রংপুরের জেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। 37 বছর বয়সী

এই চীনা নাগরিককে আলাদা করে রাখা হয়েছে যাতে যদি তাকে সত্যিই

করোনার ভাইরাস থাকে তবে এটি অন্যান্য রোগীদের মধ্যে ছড়িয়ে না

যায়। রংপুরের মেডিকেল বোর্ডের সভাপতি ডাঃ দেবেন্দ্র নাথ সরকার

জানিয়েছেন যে রোগীর সমস্ত কিছুর বিশ্লেষণ করা হচ্ছে। বাইরে থেকেও

বিশেষ দল আহ্বান করা হয়েছে। তদন্ত শেষ হলেই এই বিষয়টি নিশ্চিত

হওয়া যাবে যে চীন থেকে আসা এই ব্যক্তির করোনার ভাইরাস রয়েছে কি

না। আশঙ্কা সত্ত্বেও চিকিৎসকদের দল কোনও সিদ্ধান্তে পৌঁছাবে না।


 

Spread the love

One thought on “মৃত্যুর ভয় এমন যে স্বামীকে ছেড়ে পালালো স্ত্রী, করোনা ভাইরাস

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.