চাঁদে নেমেই ঘুমিয়ে পড়েছিলো চীনের যান জাগার পরে কাজ শুরু

চাঁদ নেমেই ঘুমিয়ে পড়েছিলো চীনের যান জাগার পরে কাজ শুরু
Spread the love
  • জেড রাবিট ঘোষণা করেছেন তার জাগার কথা

  • খুব গরম হবার পরে হাইবারনেট করার ব্যাবস্থা

  • চীন ২০২২ সালে চাঁদে মানূষ পাঠাতে চায়

নয়াদিলি: চাঁদে অবতরণ করছে চীন এর স্পেস যান। নামার পরেই সে ঘুমিয়ে পড়েছিলো।

আসলে চীনের বৈজ্ঞানিকরা তাকে সেই রকম নির্দেশ দিয়েই পাঠিয়েছেন। টানা পাঁচ দিন ঘূমোবার পরে সে জেগেছে।

তার নামে একটি নিজস্ব ট্বিটরের মতন চীনের সোশাল মিডিয়া একাউন্ট আছে।

সেই একাউন্টে সে জানিয়েছে যে ঘূমোবার পরে আমি উঠে গেছি এবং এবার কাজ করার পালা।

চীন এর কন্ট্রোল কক্ষের বিজ্ঞানীরা তাকে ঘুমাতে নির্দেশ দিয়েছেন এখানে থেকে।

পাঁচ দিন পর্যন্ত ঘূমাবার পরে সে কাজের জন্য তৈরী।

আসলে চীনের এই চন্দ্রযানের নাম জেড রাবিট-২।

এর ভেতরে এমন ব্যাবস্থা করা আছে যে ভেতরের তাপমাত্রা খুব বেড়ে গেছে সে নিজেকে বন্দ করে ঘূমিয়ে পড়ে।

চাঁদের মাটিতে নামার সময় তার তাপমাত্রা বেড়ে গেছিলো।

এই যানটি তাপমা্রা ২০০ ডিগ্রী হলেই সে বন্দ হয়ে যায়।

সেই ধকল কাটিয়ে ওঠার পরে সে এবার কাজ শুরু করেছে।

চাঁদের যে দিকে এটিকে নামান হয়েছে, সেই দিক টা পৃথিবী থেকে দেখা যায় না।

আসলে পৃথিবীর গুরুত্বাকর্ষনের কারণে চাঁদ যে ভাবে ঘোরে,তাতে তার একটি দিকই সব সময় পৃথিবীর দিকে থাকে।

পৃথিবীর চোখের আড়ালে থাকা দিকে বড় পাহাড় আছে।

বৈজ্ঞানিকরা মনে করেন যে উল্কাপিন্ড পড়ার দরূন চাঁদের এই দিকের এমন অব্যস্থা।

সেখানে ঠিক ভাবে নামার পরেই সে নিজের সামনে থাকা একটি বিশাল গর্তের ছবি পাঠিয়েছিলো।

140 কিলোগ্রাম ওজনের এই যাঁনের কাজ শুরু করার ঘোষণার পরেই তাড়াতাড়ি তার ক্যামেরা থেকে তোলা একটি ছবিও পাঠানো হয়েছে।

জেনে রাখা ভাল যে চীন ২০২২ সালে মহাকাশচারীকেও চাঁদ পাঠাতে চায়।

তার পরিকল্পনা চাঁদের উপর একটি স্পেস স্টেশন স্থাপন করা হয়।

এই যানটিতে সুইডেন, জার্মানী এবং চীনে তৈরী এই সরঞ্জাম আছে।

যা সেখানে এর অস্তিত্বমূলক কার্যক্রম ছাড়াও বিকিরণ এবং মহাকাশের বাতাসের প্রভাবও পড়বে।

যেহেতু এখন পর্যন্ত চন্দ্রের এই দিকে কোনও ইয়ন না পৌঁছেছে, তাই চীন এর এই স্থানকেন্দ্র থেকে

প্রাপ্ত তথ্যগুলি থেকে চাঁদের সম্পর্কে নতুন তথ্যাদি জানা যাবে।

এটাই পড়ুন

নিজের হৃদয় পীঠে ব্যাগ প্যাকে নিয়ে বয়ে বেড়ায় এই মেয়ে

Loading...