প্রতিনিধি

ঢাকাঃ বাংলাদেশে অবৈধভাবে বসবাস করছে এমন ১১ হাজার বিদেশি

নাগরিককে চিহ্নিত করা হয়েছে। অচিরেই তাদের নিজ নিজ দেশে পাঠানো হবে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের আইনশৃঙ্খলা-সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির সিদ্ধান্ত নিয়েছে। অবৈধ

অভিবাসীর বেশিরভাগই নাইজেরিয়া, তানজানিয়ার আফ্রিকান দেশের নাগরিক।

ভিসার মেয়াদ শেষে অবৈধভাবে বাংলাদেশে অবস্থান করছে গোয়েন্দা সংস্থার

এমন রিপোর্টের ভিত্তিতেই সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার জানালেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

আসাদুজ্জামান খান কামাল।

ঢাকায় বিভিন্ন এলাকায় বাড়ি ভাড়া নিয়ে ভারতীয় রুপি, ডলার ও টাকা

ভেজালের মত অপরাধে জড়িত নাইজেরিয়ান এমন বহু নাগরিক কারাভোগ

করছে। অনেক দেশের নাগরিকদের কারাভোগের মেয়াদ শেষ হবার পরও তাদের

গ্রহণ করছে না। বিভিন্ন দূতাবাসে যোগাযোগ করার পরও তাদের নিয়ে যাওয়া

হচ্ছে না। দূতাবাস নেই এমন দেশের নাগরিকদের হস্তান্তরেও কাউকে মিলছে যাচ্ছে

না। ব্যবসা-বাণিজ্য করতে আসা লোকজনও তালিকায় রয়েছেন। গোয়েন্দা

সংস্থার তথ্য মতে বাংলাদেশে আশ্রিত রোহিঙ্গা ও বিহারি ছাড়া অবৈধ বিদেশির

সংখ্যা মাত্র ২১ হাজার। আর বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থার তথ্যে বলা হচ্ছে,  শুধু

বিদেশি অবৈধ শ্রমিকের সংখ্যাই ১০ লাখ।

শরণার্থী রোহিঙ্গা, বিহারি এবং অবৈধ বিদেশি মিলিয়ে সংখ্যাটা ৩০ লাখের

অধিক। বিদেশিরা ভ্রমণ ভিসায় এসে পাসপোর্ট ছিঁড়ে ফেলে থেকে যাচ্ছেন

বাংলাদেশে। অভিবাসন নিয়ে কাজ করেন এমন অনেক বিশ্লেষকদের মন্তব্য

দীর্ঘদিন ধরেই বিহারিদের যন্ত্রণা সহ্য করছে রাষ্ট্র। এবার যোগ হয়েছে বিশাল

রোহিঙ্গা বহর। বিভিন্ন সূত্র বলছে, সবচেয়ে বেশি বিদেশি শ্রমিক কাজ করেন

পোশাক খাতে। ২০১৫ সালে বেসরকারি গবেষণা সংস্থা সেন্টার ফর পলিসি

ডায়ালগের (সিপিডি) গবেষণায় মতে প্রায় ৫ লাখ ভারতীয় নাগরিক বাংলাদেশে

কাজ করেন। তারা তাদের দেশে এক বছরে ৩ দশমিক ৭৬ বিলিয়ন ডলার

পাঠান। যা বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৩০ হাজার কোটি টাকার সমান।

বাংলাদেশে থাকা বিদেশিদের রিপোর্ট আছে

এই ছাড়া ২০১৮ সালে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক একটি গবেষণা সংস্থা পিউ রিসার্চ সেন্টার

তাদের গবেষণায় উল্লেখ করেছে, বাংলাদেশে কর্মরত বিদেশি নাগরিকেরা বৈধ

পথে বছরে প্রায় ২০০ কোটি ডলার রেমিট্যান্স বা প্রবাসী আয় নিয়ে যান।

যা বাংলাদেশি মুদ্রায় সাড়ে ১৬ হাজার কোটি টাকার বেশি। রপ্তানিমুখী তৈরি

পোশাকসহ বিভিন্ন খাতে এসব বিদেশি নাগরিক কাজ করেন। প্রায় ৫৫টি দেশের

নাগরিক বাংলাদেশে কাজ করলেও গেল আগস্ট পর্যন্ত একটি গোয়েন্দা সংস্থার

হিসাবে ভারতের ১০ হাজার ২২৭ জন, চীনের ৩ হাজার ৬৫২, নেপালের ১ হাজার

৫১৮, পাকিস্তানের ৪২১, শ্রীলঙ্কার ৫৩৪, রাশিয়ার ৩৪৮, দক্ষিণ কোরিয়ার ৬১০,

উত্তর কোরিয়ার ৪০৬, সোমালিয়ার ১২২, যুক্তরাষ্ট্রের ৪১৫ এবং যুক্তরাজ্যের

২০৩ জন অবৈধ নাগরিক বাংলাদেশে অবস্থান করছেন।

এসব দেশের বৈধ নাগরিক রয়েছেন ভারতের ১০ হাজার ৪৮৩, চীনের ৬ হাজার

২৮১, নেপালের ১ হাজার ২১১ জন, পাকিস্তানের ৫১৭, রাশিয়ার ৪৪৩,

শ্রীলঙ্কার ১ হাজার ৫৫৮, যুক্তরাজ্যের ২ হাজার ৬২৭ এবং যুক্তরাষ্ট্রের

৪ হাজার ৪৯৬ জন।

Spread the love

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.