মালদাঃ আমের ফলন বাড়াতে এখন থেকেই প্রস্তুতি শুরু। মালদায় এবার

আমের ফলন বাড়াতে যাতে রাসায়নিক জাতক ওষুধ ব্যবহার করা না

হয় তা নিয়ে অভিযানে নামছে উদ্যান পালন দপ্তর। যদিও এই মুহূর্তে আম

গাছে টুসিপোকার আক্রমন ছাড়া অযথা কোনো ওষুধ প্রয়োগ না করার

ব্যাপারেও জানিয়েছে উদ্যানপালন দপ্তর। কিন্তু অনেক ক্ষেত্রে দেখা যাচ্ছে

শীতের প্রকোপ কমতেই বেশকিছু বাগানে শুরু হয়েছে আম গাছের বিভিন্ন

ধরনের রাসায়নিক ওষুধ প্রয়োগ করার কাজ। বিশেষ করে অনেকে

আবার আমের ফলন বাড়াতে গাছে কাল্টার নামক এক জাতীয় ওষুধ

প্রয়োগের কাজ শুরু করেছে। যা একেবারেই অনুচিত বলে জানিয়েছে

উদ্যানপালন দপ্তর। সংশ্লিষ্ট দপ্তরের মালদা জেলার উপ-অধিকর্তা রাহুল

চক্রবর্তী জানিয়েছেন, কাল্টার ওষুধ প্রয়োগ করলে আমগাছের বিপুল ক্ষতি

হয়। এক্ষেত্রে উদ্যানপালন দপ্তর থেকে বিভিন্ন আম বাগানগুলোতে

সরোজমিনে গিয়ে তদারকি করা হবে। তবে এই সময়ে যদি আম গাছে

ম্যাংগোহপার অর্থাৎ টুসিপোকার আক্রমণ হয়ে থাকে। তাহলে

মিডাক্লোপ্রিড ওষুধ ১৫ লিটার জলে ৪ মিলিলিটার ব্যবহার করে স্প্রে করা

যেতে পারে‌। পাশাপাশি প্রয়োজন বুঝে এবং গাছের পরিস্থিতি দেখেই কপার

অক্সিক্লোরাইড ১ লিটার জলে ৪ গ্রাম মিশিয়ে স্প্রে করা যেতে পারে। গাছের

কাল্টার জাতীয় ওষুধ প্রয়োগ না করার ক্ষেত্রে উদ্যান পালন দপ্তর থেকে

নানাভাবে আমচাষীদের সচেতন করার প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেওয়া

হয়েছে।

আমের ফলন এবার ৩১ হাজার হেক্টর জমি জুড়ে

উদ্যান পালন দপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে, মালদা জেলায় প্রায় ৩১ হাজার

হেক্টর জমি জুড়ে আম বাগান রয়েছে। ২০১৯ সালে মালদা জেলায় মোট ৩

লক্ষ ৭০ হাজার মেট্রিক টন আম উৎপাদন হয়েছিল। তবে এবছর

আবহাওয়া অনুকূল থাকলে এই উৎপাদনের মাত্রা অনেকটাই বাড়তে পারে।

অনেক ক্ষেত্রে দেখা যাচ্ছে যে একাংশ চাষিরা কোনো কিছু না বুঝেই আমের

ফলন বাড়াতে কাল্টার জাতীয় রাসায়নিক ওষুধ প্রয়োগ করছে। যা

একেবারেই ব্যবহার যোগ্য নয় বলে জানিয়েছে উদ্যানপালন দপ্তর। উদ্যান

পালন দপ্তর জানিয়েছে, এই কাল্টার ওষুধ এক ধরনের হাইব্রিড ফলনের

কাজ করে থাকে। এই ওষুধ প্রয়োগ করার ক্ষেত্রে গাছের নতুন পাতা , ডাল

বের হওয়ার আগেই মুকুল ধরে যায়। যা ভবিষ্যতে আমের ফলনের ক্ষেত্রে

চরম ক্ষতির সম্ভাবনা রয়েছে। তাই সংশ্লিষ্ট দপ্তর থেকে এই ওষুধ ব্যবহার

না করার ক্ষেত্রে প্রয়োজনমতো অভিযান চালানোর ব্যবস্থা করেছে উদ্যান

পালন দপ্তর। ইংরেজবাজার ব্লকের মহদীপুর এলাকার আম চাষি মাধব

ঘোষ, রাজীব ঘোষ, মিজানুর রহমানের বক্তব্য, এই সময় প্রয়োজন মতো

গাছের ওষুধ স্প্রে করা হচ্ছে। অনেক গাছের টুসিপোকার আক্রমণ দেখা

দিয়েছে। গাছে মুকুল সৃষ্টির ক্ষেত্রে ক্ষতির সম্ভাবনা তৈরি করতে পারে। তাই

উদ্যানপালন দপ্তরের পরামর্শ অনুযায়ী আমরা আম গাছে ওষুধ প্রয়োগ

করছি। উদ্যানপালন দপ্তরের জেলার উপ-অধিকর্তা রাহুল চক্রবর্তী

জানিয়েছেন, রোগ পোকার আক্রমন ছাড়া এই সময়ে গাছে কোনো কিছুই

প্রয়োগ না করাই উচিত। পাশাপাশি ফলন বাড়ানোর ক্ষেত্রে আম চাষীদের

সব ধরনের পরামর্শ ও সহযোগিতা করা হচ্ছে।


 

Spread the love

One thought on “আমের ফলন বাড়াতে রাসায়নিক ব্যবহার না করা নিয়ে অভিযান শুরু

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.