আন্টার্টিকা ভারতীয় উপমহাদেশের অন্তর্গত ছিল আবার দেখুন ভিডিও

contenent below antarctica

নয়া দিল্লী – আন্টার্টিকা আগে ভারত উপমহাদেশের অন্তর্গত ছিল।

পৃথিবীতে চলতে থাকা নানা ধরনের পরিবর্তনের কারণে  এটি বর্তমানে পৃথক হয়ে গেছে।

বিজ্ঞানীরা বলছেন, প্রায় দুই কোটি বছর আগে এই সব এলাকা একত্রিত ছিল।

ভিডিও তে দেখুন কি ভাবে সব আলাদা আলাদ হল

পরবর্তীতে পৃথিবীর পৃষ্ঠের অভ্যন্তরে টেকনিকনিক প্লেটগুলির স্থান পরিবর্তন এবং

প্রতিবন্ধক সংঘর্ষের কারণে এলাকাগুলি একে অপরের থেকে পৃথক হয়ে যায়।

মাঝে অনেক বার বড় উল্কাপিন্ডের মধ্যে সংঘর্ষের কারণে নানান বিপর্যয় হয়।

এ ছাড়াও অনের পরিবর্তন ও দেখা যায়।

বর্তমানে আধুনিক যন্ত্রপাতি এবং স্যাটেলাইট ছবির মাধ্যমে বিজ্ঞানীরা

এই অঞ্চলে পরিবর্তনের সম্বন্ধে নিয়মিত অধ্যয়ন করছেন,

যাতে এখানকার বরফ গলা এবং সমুদ্রের জল স্তর বৃদ্ধির আশঙ্কাকে আরও ভালভাবে বোঝা যায়।

আন্টার্টিকার পাহাড় ও সমুদ্রের নীচে মহাদ্বীপ রয়েছে

আধুনিক প্রযুক্তির সাথে গবেষণার সাথে সাথে এটিও জানা গেছে যে প্রকৃতপক্ষে এই পুরো বরফে ভরা

অ্যান্টার্কটিকার বিশাল পাহাড় এবং গভীর সমুদ্রের নীচে একটি সম্পূর্ণ মহাদ্বীপ রয়েছে।

জার্মানী এবং ব্রিটেনের সিনিয়র বৈজ্ঞানিকরা এই অঞ্চলের নিচে দেবে থাকা সম্পূর্ণ মহাদ্বীরটি কেমন ছিল,

তার আকার কিরকম ছিল, এসব নিয়ে কাজ শুরু করেছেন। এই নিয়ে ক্রমাগত গবেষণা চলছে।

পৃথিবীর গুরুত্বাকর্ষণ শক্তি নিয়ে শুরু হওয়া একটি গবেষণায় এই ঘটনাটি সামনে আসে।

ইউরোপিয়ান বিজ্ঞানীদের দল 2009 থেকে এই কাজটি শুরু করছে।

প্রতিটি স্তরের থেকে প্রাপ্ত তথ্য এবং ভূগর্ভস্থ তথ্যগুলির সাহায্যে ত্রিমাত্রিক মডেল প্রস্তুত করা হয়েছে।

এই মডেলটিও বরফের নিচে একটি মহাদ্বীপের অস্তিত্বের ইঙ্গিত দিয়েছে।

মাটির নমুনা সংগ্রহ করেছেন বৈজ্ঞানিকেরা

এই এলাকায় অনেক গভীর পর্যন্ত খনন করে মাটির নমুনা সংগ্রহ করার পরে বিজ্ঞানীরা

এই ফলাফলের উপর পৌঁছেছেন যে এখানে পাওয়া প্রাচীন মৃত্তিকাও সমুদ্র সৈকত পাওয়া মাটির মতো একই।

মনে করা হয় যে ক্রমাগত বৃষ্টির পর যেই মাটি তৈরী হয়েছে, তার সাথে  এই মাটির কিছু মিল অবশ্যই আছে।

এর ওপর ভিত্তি করে বলা হয়েছে যে প্রকৃতপক্ষে অ্যান্টার্কটিকা এবং অষ্ট্রেলিয়া ভারতের অংশ,

যেগুলি পরে পৃথক পৃথক হয়ে একে অপরের থেকে দূরে চলে গেছে।

অন্যদিকে আন্টার্কটিকার পশ্চিম প্রান্ত যে মাটি পাওয়া গেছে, তা এর সাথে মিলছে না,

যার উপর ভিত্তি করে মনে করা হচ্ছে যে বর্তমান আন্টার্কটিকার এই অংশটি পৃথিবীর

অন্য কোন অংশের থেকে আলাদা হয়ে পরে এখানে এসে জুড়ে গেছে।

বিজ্ঞানীরা যে মডেল তৈরি করেছেন তার মতে ২ কোটি বছর আগে প্রকৃতপক্ষে পুরো পৃথিবী এক ছিল।

এই সংহত পৃথিবীকে পানেজিয়া বলা হয়।পরে এই পুরো পৃথিবী খন্ড খন্ড হয়ে গেছে।

এই কারনেই আলাদা হয়ে যাওয়া ভুখন্ডগুলি আলাদা আলাদা মহাদেশ হিসাবে পরিগণিত হয়।

বিজ্ঞানীরাও সম্ভাবনা প্রকাশ করছেন যে, পৃথিবীর অভ্যন্তরে টেক্লোনিক প্লেটের

এদিক ওদিকে চলে যাওয়ার কারণে ভবিষ্যতেও এই সমস্ত বর্তমান মহাদেশগুলির রূপান্তর হতে পারে।

 

Please follow and like us:

Author: Bangla R khabar

Loading...