সিসিএল ইচ্ছামত চলবে না এলাকা: প্রকাশ রাম আন্দোলনের চতুর্থ দিন

সিসিএল
Spread the love
সংবাদদাতা
বালুমাথ – সিসিএল কম্পানির কাজ পূরোপুরি বন্দ করে দেবার হুমকি দিলেন স্থানীয় বিধায়ক প্রকাশ রাম। গ্রামবাসিদের আন্দোলনের সমর্থনে গিয়েছিলেন তিনি। উপস্থিত ব্যক্তিদের সঙ্গে কথা বল রাম বলেন যে সিসিএল কম্পানি যা খুশি তাই করতে পারবে না। এটার বিরোধ করা হবে।
এই আন্দোলনটি সেগ্রাডা থেকে শুরু হয়েছে যা সব কয়লাখলা এলাকার সব অঞ্চলে চালানো হবে। তিনি বলেন সরকার আর কম্পানির কাজ কর্ম দেখে মনেই হচ্ছে না যে এইা লোকেদের উন্নয়নে কাজ করতে চায়। এদের আসল উদ্দেশ্য বোধহয় শুধু কয়লা বের করা আর টাকা রোজগার করা।
প্রতি দিন লক্ষ লক্ষ টন কয়লা সিসিএলের খনি থেকে বের করা হচ্ছে। এই সব জায়গার মানুষর কষ্টে বূঝতে কেউ রাজি না। এই আন্দোলনের মাধ্যমে সি.সি.এল কর্তৃপক্ষকে সতর্ক করে দিয়েছিল যে আমাদের আন্দোলনকারীরা তাদের ভয় দেখাবে না।
তিনি বলেলেন যে যদি কম্পানির লাঠি আর বুলেট দিয়ে ভয় দেখাতে চায় তো তাদের বুঝে নিয়ে হবে যে আমাদের সাথে বেকার যূবকদের একটি বাহিনী আছে। তিনি বলেন যে সব কোম্পানি প্রথমে বেকার মানুষদের কর্মসংস্থান নিশ্চিত করবে এবং তারপর কয়লা পরিবহনে কাজ করবে।
যদি এই আন্দোলনে কেউই বেঁচে থাকার প্রয়োজন হয় তবে প্রথম আত্মত্যাগ প্রকাশ রাম হবে। সিসিএল ও জেলা প্রশাসক সেগ্রা পাহুছকর পর্যন্ত আন্দোলন চলবে এবং আন্দোলনকারীদের সাথে পরামর্শ করা হবে না। রাম বলেন, CCL সিএসআর তহবিলের প্রভাবিত এলাকা থেকে দশ কিলোমিটার পরিমাণ মধ্যে উন্নয়নশীল হয় কিন্তু Tetriakhad ধ্বংস বদলে উন্নয়ন তারিখ থেকে এটি খোলা হয়েছে 28 বছর করা হয়।
মুক্তিযোদ্ধা সুরেন্দ্র উরাণ বলেন যে আমরা সিসিএল অফিসারের সাথে আলোচনা করব। যদি কোনও ব্রোকারটি আলোচনার জন্য আসে, তাহলে তাকে বহিষ্কার করা হবে।
অনুষ্ঠানে চন্দ্রমোহন যাদব উপর গ্রামীণ প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি, সম্পাদক জিতেশ্বর সাহু, বিহারী যাদব, জুনায়েদ আনোয়ার, সহেন্দ্র রাম, লবকুশ সিং অনেক মানুষ, মো মোজাম্মিল, সহ ছাড়া মো কুদ্দুস,, কুলদীপ যাদব, মোহাম্মদ মনসুর, সুরেন্দ্র প্রসাদ, রাজেশ প্রজাপতি, কৃষ্ণ যাদব, মোহাম্মদ মাহমুদ, মোহাম্মদ আরশাদ, মো নিরাপদ আলম, মোহাম্মদ কলিম,, মোহাম্মদ হাকিম প্রদীপ গুপ্ত, সহ অনেক লোক হাজির হয়েছিলো।

Originally posted 2018-01-02 13:48:17.

Loading...