লালূ প্রসাদ আবার জেল গেলেন, ২১ বছরের পশুখাদ্য কেলেঙ্কারি মামলার সাতকাহন এক নজরে

0 93
রাঁচি (এজেন্সী) – পশুখাদ্য কেলেঙ্কারি মামলায দোষীসাব্যস্ত হলেন অবিভক্ত বিহারের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী লালুপ্রসাদ যাদব| শনিবার বিশেষ সিবিআই আদালত তাঁকে দোষীসাব্যস্ত করল| আগামী ৩ জানুযারি তাঁর সাজা ঘোষণা করা হবে| এদিনের মামলার রায ঘোষণার পরই তাঁকে জেল হেফাজতে নেওযা হয| নববর্ষে ফের তাঁকে কাটাতে হবে শ্রীঘরে| ১৯৯৬ সালে পশুখাদ্য কেলেঙ্কারি মামলায ট্রেজারির টাকা তছরূপের অভিযোগ উঠেছিল বিহারের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে| ২০১৩ সালে তিনি একবার এই মামলায জেলে গিযেিলেন| ২০১৪ সালে তিনি পশু খাদ্য কেলেঙ্কারির সমস্ত মামলা থেকে মুক্তি দিযেিল ঝাড়খণ্ড হাইকোর্ট| কিন্তু আবারও পশুখাদ্য কেলেঙ্কারির দেওঘর মামলায ৮৯ লক্ষ টাকার কেলেঙ্কারির অভিযোগে তিনি জেলে গেলেন|

লালু প্রসাদ যাদব এক নজরে পশুখাদ্য কেলেঙ্কারিতে

২৭ জানুযারি, ১৯৯৬ – পশুখাদ্য কেলেঙ্কারি মামলায পুলিশ এফআইআর দাযে করা হল বিহারের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী লালুপ্রসাদ যাদবের বিরুদ্ধে|
১১ মার্চ, ১৯৯৬ – পটনা হাইকোর্টের নির্দেশে তদন্তভার ওটে সিবিআইজ“এর হাতে| এতদিন রাজ্য পুলিশ তদজন্ত করছিল| পুলিশ সমস্ত নথিপত্র তুলে দেয সিবিআইকে|
২৭ মার্চ, ১৯৯৬ – সিবিআই নতুন করে এফআইআর দাযে করে| শুরু হয লালুপ্রসাদ“সহ ৪৫ অভিযুক্তের বিরুদ্ধে তদন্ত|
২৭ এপ্রিল, ১৯৯৬ – সিবিআই লালুপ্রসাদ“সহ অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে অন্তর্বর্তী চার্জশিট পেশ করে| শুরু হয পশুখাদ্য কেলেঙ্কারি মামলা|
জুলাই, ১৯৯৭ – চূড়ান্ত চার্জশিট পেশ করা হয| অন্তর্বর্তী চার্জশিট পেশের পর সিবিআইযে সমযে লেগে যায আরও এক বছর তিনমাস|
আগস্ট, ১৯৯৭ – পশুখাদ্য কেলেঙ্কারি মামলায গ্রেফতার করা হয বিহারের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী লালুপ্রসাদ যাদবকে|
ডিসেম্বর, ১৯৯৭ – লালুপ্রসাদ জামিন পেলেন| গ্রেফতার হওযার পর যে শ্রীঘরে ঢুকেছিলেন, জেল থেকে বের হলেন ১৩৫ দিন পর|
২০০১ – এক বছর আগে বিহার ভেঙে ঝাড়খণ্ড পৃথক রাজ্য হল| সিু্প্রম কোর্টের নির্দেশে রাঁচিতে বিশেষ সিবিআই আদালতে মামলা স্থানান্তর করা হল|
২০০২ – রাঁচিতে সিবিআই আদালতে বিচার শুরু হল| এরপর ১০ বছর ধরে চলে মামলাটি| একে একে সমস্ত অভিযুক্ত ও সাক্ষীদের জেরা
১৪ ফেব্রুযারি, ২০১২ – সিবিআই আদালতে জেরা করা হল লালুপ্রসাদ যাদবকে| সেইসঙ্গে শেষ হল সাক্ষ্যগ্রহণ পর্ব|
জুলাই, ২০১৩ – ১৫ জুলাইযে মধ্যে রায ঘোষণার জন্য নির্দেশ জারি করল ঝাড়খণ্ড হাইকোর্ট|
আগস্ট, ২০১৩ – সিবিআই আদালত থেকে মামলা স্থানান্তরিত করার আর্জি নিযে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হন লালুপ্রসাদ যাদব|
১৩ আগস্ট, ২০১৩ – সুপ্রিম কোর্টে লালুপ্রসাদের মামলা স্থানান্তরণের আর্জি খারিজ করে দেয|
১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৩ – ৩০ সেপ্টেম্বর পশুখাদ্য কেলেঙ্কারি মামলায রায জানানোর কথা ঘোষণা করে বিশেষ সিবিআই আদালত|
৩০ সেপ্টেম্বর, ২০১৩ – লালুপ্রসাদ যাদব, জগন্নাথ মিশ্র“সহ ৪৫ জনকে দোষীসাব্যস্থ করা হয| সাতজনের সাজা ঘোষণা| লালুপ্রসাদসহ বাকি ৩৮ জনের সাজা ৩ অক্টোবর|
৩ অক্টোবর, ২০১৩ – লালুপ্রসাদসহ ৩৮ জনের সাজা ঘোষণা হয| বিহারের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীর ৫ বছরের জেল ও ২৫ লক্ষ টাকা জরিমানা হয| এই বছরই তাঁর জামিন মঞ্জুর করে সুপ্রিম কোর্ট|
২০১৪ – লালুপ্রসাদ যাদবের বিরুদ্ধে যে চারটি মামলায রায ঘোষিত হযনি, সেগুলি থেকে ঝাড়খণ্ড হাইকোর্ট মুক্তি দেয|
মে, ২০১৭ – সিবিআইযে আবেদনের ভিত্তিতে ঝাড়খণ্ড হাইকোর্টের রায খারিজ| ফের পৃথকভাবে মামলা শুরুর নির্দেশ|
২৩ ডিসেম্বর, ২০১৭ – এক প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী জগন্নাথ মিশ্র বেকসুর খালাস| আর এক প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী লালুপ্রসাদ যাদব দোষীসাব্যস্ত| ৩ জানুযারি সাজা ঘোষণা|

You might also like More from author

Comments

Loading...