My title page contents Press "Enter" to skip to content

প্রধানমন্ত্রী ও মুখ্যমন্ত্রীর ছবি দেওয়া রাখি কিনতে বাজারে মানুষের ঢল




মালদাঃ  প্রধানমন্ত্রী ও মুখ্যমন্ত্রীর ছবি দেওয়া রাখি কিনতে বাজারে মানুষের ঢল নেমেছে।

অভিনব কায়দায় তৈরী রাখি নজর কেড়েছে ক্রেতাদের।

হাতে মোদি-মমতার রাখি নিয়ে কেউ বলছেন “সবকা সাথ সবকা বিকাশ”,

আবার কেউ বলছেন “কন্যাশ্রী, রূপসী, জয় বাংলা’র কথা।”

১৪ আগস্ট বুধবার বাংলা জুড়ে রাখি পূর্ণিমা উৎসব পালিত হবে।

আর তার আগেই বাজারে ঢালাও বিক্রি হচ্ছে মোদি, মমতার ছবি দেওয়া রং-বেরঙের রাখি।

আট থেকে আশি এই রাখি কিনতে ভিড় জমাচ্ছেন বিভিন্ন দোকানে।

বিজেপি- তৃণমূল দুই দলেরই কর্মী-সমর্থকেরা তাঁদের প্রিয় নেতানেত্রীর ছবি দেওয়া রাখি কিনতে শুরু করেছেন।

মালদা শহরের এক রাখি বিক্রেতা ভুবন চন্দ্র দাস বলেন , উৎসবের এখনো সাত দিন বাকি।

তার আগেই বাজারে ছেয়ে গিয়েছে মোদি – মমতার রাখি ।

অন্যান্য আইটেমের রাখি থাকলেও মানুষের মধ্যে চাহিদা বেশি করে দেখা যাচ্ছে

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির ছবি দেওয়া রাখির।

মাত্র ১০ টাকার বিনিময়ে মানুষ এই রাখি কিনছেন।

অনেকেই জিজ্ঞেস করছেন কোন রাখির বিক্রি বেশি?

এখনও পর্যন্ত যা বিক্রি করেছি, তাতে উভয়পক্ষই সমানে সমানে টক্কর দিয়ে চলেছে।

মালদা শহরের বিভিন্ন বাজারে ঢালাও বিক্রি হচ্ছে মমতা ও মোদির ছবি দেওয়া রঙিন রাখি।

প্রধানমন্ত্রী ও মুখ্যমন্ত্রীর ছবি দেওয়া রাখি বিক্রি হচ্ছে ১০ টাকায়

প্রধানমন্ত্রী ও মুখ্যমন্ত্রীর ছবি দিয়ে বিভিন্ন নকশার আদলে তৈরি করা হয়েছে রাখিগুলি।

জাতি-ধর্ম-নির্বিশেষে বন্ধু—বান্ধবীরাও এই রাখি উৎসব সাড়ম্বরে পালন করবেন আগামী বুধবার।

মালদা শহরের দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জন মার্কেট, কাজী আজাহারউদ্দিন মার্কেট, গৌড় রোড মার্কেট,

রাজমহল রোড, নেতাজি সুভাষ রোড—সহ সর্বত্রই বিভিন্ন দোকানে বিক্রি হচ্ছে ‘মোদী ও মমতার’ ছবি দেওয়া রাখি।

রাখি বিক্রেতাদের বক্তব্য,  দাম যা-ই হোক না কেন, শুধুমাত্র প্রধানমন্ত্রী ও মুখ্যমন্ত্রীর ছবি দেখেই

অতি উৎসাহে স্কুল-কলেজ পড়ুয়ারা থেকে শুরু করে আমজনতা সেটা কিনে ফেলছেন।

তৃণমূল কংগ্রেস দলের নেতাকর্মী থেকে দলের সমর্থকরাও কিনছেন মমতার ছবি দেওয়া রাখি।

নেতাজি পুর বাজারের এক রাখি বিক্রেতা চন্দন দাস বলেন,  প্রধানমন্ত্রী ও মুখ্যমন্ত্রীর ছবি দেওয়া রাখি

বাজারে দারুণ প্রভাব ফেলেছে।

কে কোন দলের নেতা-নেত্রীদের সমর্থন করেন সেটা তাঁদের কেনাকাটাতেই বোঝা যাচ্ছে।

কার পাল্লা ভারী এখনো সেটা পরিষ্কার করে বলতে পারব না।

তবে গড়ে প্রতিদিন শ’খানেক রাখি অনায়াসেই বিক্রি হয়ে যাচ্ছে।

ইংরেজবাজার পুরসভার চেয়ারম্যান তথা তৃণমূল বিধায়ক নিহার ঘোষ বলেন,

মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জীর জনপ্রিয়তা ও উন্নয়ন সম্পর্কে নতুন করে বলার কিছু নেই।

মানুষ সব সময় মুখ্যমন্ত্রীকে কাছে পেতেই হাতে রাখি বেঁধে প্রমাণ করে দিতে চাইছেন।

বিজেপির জেলার সাধারণ সম্পাদক অজয় গাঙ্গুলি বলেন , মোদি সরকার পাঁচ বছর দেশের জন্য যা করেছে

সেই ব্যাপারে মানুষের কাছে নতুন করে বলার কিছু নেই।

মোদির রাখির প্রভাব কতটা বেড়েছে তা বিক্রেতারাও বুঝতে পারছেন।

মোদিজী আমাদের সকলের হৃদয়ে রয়েছেন।

মালদা মার্চেন্ট চেম্বার অব কমার্সের সম্পাদক জয়ন্ত কুন্ডু বলেন, মোদি, মমতার ছবি দেওয়া

রাখির চাহিদা দেখে হতবাক হয়ে গিয়েছি।

রাখি বিক্রি হলে ব্যবসায়ীদের সাময়িক সময়ের রুজি রোজগারের বাড়বে।

তবে দুজনেই যে জনপ্রিয় নেতা-নেত্রী তাতে কোন সন্দেহ নেই।



Spread the love
More from জীবনধারাMore posts in জীবনধারা »
More from পশ্চিমবঙ্গMore posts in পশ্চিমবঙ্গ »

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.