Press "Enter" to skip to content

পূজোর বাজার সেরে ঘরে ফেরার পথে ছিনতাইবাজদের শিকার শিক্ষক দম্পতি, ধৃত ৪

মালদাঃ  পুজোর বাজার সেরে বাইপাস রোড ধরে বাড়ি ফিরছিলেন শিক্ষক দম্পতি।

ফাঁকা রাস্তায় ওই দম্পতিকে অস্ত্র দেখিয়ে সর্বস্ব লুট করে সশস্ত্র ছিনতাইবাজের দল।

এই ঘটনার তিন দিনের মাথায় সোমবার রাতে অভিযান চালিয়ে

সাহাপুর এলাকার একটি আমবাগান থেকে চার দুষ্কৃতীকে গ্রেফতার করলো পুলিশ।

ঘটনাটি পুরাতন মালদা থানা এলাকায়।

ধৃতদের মধ্যে দুইজন আবার নবম শ্রেণীর স্কুল পড়ুয়া ।

ধৃতদের কাছ থেকে একটি পাইপগান, এক রাউন্ড কার্তুজ এবং একটি ভোজালি উদ্ধার করেছে পুলিশ।

এছাড়াও ওই শিক্ষক দম্পতির খোয়া যাওয়া মোবাইল, পুজোর বাজারের সামগ্রী

এবং ছিনতাই হওয়া মোটরবাইকটি উদ্ধার করা হয়েছে।

তবে উদ্ধার হয়নি নগদ আট হাজার টাকা।

জিনিসপত্র ভাগাভাগি করার সময় হাতেনাতে ধরা পড়ে ছিনতাইবাজরা

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে,  ধৃতদের নাম সুরজিৎ ঘোষ (১৯), সায়ন সাহা (২৮), বিধান মন্ডল (১৭) ও অমিত মন্ডল (১৮)।

সুরজিতের বাড়ি বৈষ্ণবনগর থানা এলাকায়।

সে সাহাপুর গ্রামে বাড়ি ভাড়া নিয়ে থাকতো ।

সায়ন  ও  বিধানের বাড়ি চর কাদেরপুর এলাকায়।

অমিতের বাড়ি চর কাদেরপুর গ্রামে।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে,  ৭ সেপ্টেম্বর রাতে গাজোল থানার দহিল গ্রামের শিক্ষক দম্পতি

সুব্রত বিশ্বাস এবং সুপ্রিয়া সরকার মালদা শহরে পুজোর বাজার করতে এসেছিলেন।

সুব্রত বাবু আলাল হাই স্কুলের শিক্ষক।

ওইদিন রাতে বাজার সেরে পুরাতন মালদা থানার বাইপাস রোড ধরে  বাড়ি ফিরছিলেন ।

সেই সময়ই  নির্জন এলাকায় ওই দম্পতির মোটরবাইকটি চায় ওই চার দুষ্কৃতী।

বন্দুক দেখিয়ে ওই শিক্ষক দম্পতির মোটরবাইক ছিনতাই করা হয়।

নগদ আট হাজার টাকা, মোবাইল এবং পুজোর বাজারের সামগ্রী লুট করে দুষ্কৃতীরা।

এমনকি বাধা দিতে গেলে শিক্ষক দম্পতিকে মারধোর করা হয় বলে অভিযোগ।

এরপর দুষ্কৃতীরা এলাকা থেকে পালিয়ে যায়।

পরে স্থানীয় কিছু মানুষ ওই শিক্ষক দম্পতিকে উদ্ধার করে।

পুলিশ জানিয়েছে , এই ঘটনার পরের দিন, ৮ সেপ্টেম্বর গাজোলের ওই শিক্ষক দম্পতি

পুরাতন মালদা থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

মালদার ডিএসপি (ডিএনটি) শ্যামল মন্ডল জানিয়েছেন,  শিক্ষক দম্পতির অভিযোগের ভিত্তিতে

পুরাতন মালদা থানার এসআই দিলিপ হালদারের নেতৃত্বে তিন জনের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়।

এরপর শুরু হয় এলাকায় চিরুনি তল্লাশি।

বিভিন্ন সূত্র ধরে এই চার  ছিনতাইবাজের নাম, পরিচয় জানা যায়।

এদিন রাতে সাহাপুর এলাকার একটি নির্জন বাগানে ওই ছিনতাইবাজদের দল জড়ো হয়েছিল

এবং সেখানে তারা ছিনতাই করা জিনিসপত্র ভাগাভাগি করছিল ।

সেই মুহূর্তে অভিযান চালিয়ে তদন্ত কমিটির অফিসারেরা অভিযুক্তদের হাতেনাতে ধরে ফেলেন।

পুলিশ কর্তাদের মতে,  এত অল্প বয়সে এইসব কিশোর – যুবকেরা অপরাধমূলক কাজে জড়িয়ে পড়ছে

তা উদ্বেগের বিষয়।

ধৃত দুই নাবালককে জুভেনাইল কোর্টে পাঠানো হচ্ছে।

বাকি দুজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশি হেফাজতে নেওয়া হবে।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
More from অপরাধMore posts in অপরাধ »
More from দেশMore posts in দেশ »

One Comment

Leave a Reply

Mission News Theme by Compete Themes.
error: Content is protected !!