ত্রিপুরায় গেরুযা ঝড়ের কারণ কী ? বামফ্রন্ট উড়ে গেলো বিজেপির হাওয়ায়

ত্রিপুরায়
আগরতলা (এজেন্সী) – ত্রিপুরা, বিজেপি যেখানে কখনো লড়াই করার জন্য মাথা তুলতে পারেনি, সেখানে হঠাত্ কী হলো? ভোটের ফলের পর এ প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে উত্সুক ব্যক্তিদের মনে| টানা ২৫ বছর ধরে ত্রিপুরা বামদের দখলে ছিল| লাল সরকারের শাসনে অভ্যস্ততাও ছিল জনগণের|
 বিশেষ করে সাদামাটা জীবন যাপন করে যাঁর নাম ছড়িযে ছিল, ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী সেই মানিক সরকারের জনপ্রিয়তা নিযে কারও কোনো প্রশ্ন ছিল না| সিপিএমের টানা ২৫ বছরের শাসনের মধ্যে ২০ বছর মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন তিনি| সেই ত্রিপুরায় লাল সরকার বিজেপির গেরুযা ঝড়ে উড়ে গেল|
আগামী পাঁচ বছরের জন্য সেখানে শাসন শুরু করতে যাচ্ছে বিজেপি| ত্রিপুরা জযে মধ্য দিযে ভারতের ২০তম রাজ্যে বিজেপি সরকার প্রতিষ্ঠিত হলো| শনিবার বেলা আড়াইটা পর্যপন্ত হিসাবে ক্ষুদ্র জাতিসত্তার দল আইপিএফটির সঙ্গে জোট বেঁধে বিজেপি পেযেছে ৪১টি আসন| অন্যদিকে সিপিএম পেযেছে ১৮টি আসন|
ভারতের উত্তর পূর্বের বাঙালি প্রধান ত্রিপুরা রাজ্যের বিধানসভায় মোট ৬০টি আসন| এর মধ্যে একটি আসনে বামফ্রন্ট প্রার্থীর মৃতু্য় হওযায় নির্বাচন স্থগিত রযেছে| আজ সকাল থেকে ৫৯টি আসনের ভোট গণনা হয়| সেসব আসনে নির্বাচন হয় গত ১৮ ফেব্রুযারি| আর আজ সকাল আটটা থেকে শুরু হয় ভোটগণনা|
শূন্য আসন থেকে শাসক বনে যাওযা বিজেপির উত্থান নিযে চলছে নানা বিশ্লেষণ| দীর্ঘ ২৫ বছর ধরে বামদের শাসন পাল্টাতে চলো পাল্টাই স্লোগানই কি শেষ পর্যান্ত বাজিমাত করল? সিপিএমের টানা শাসনে ভোটাররা একঘেযে হযে শাসক পরিবর্তন করে দেখতে চাইছে কী হয়?
এমনিতে বিজেপির কড়া সমালোচক পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও চেযেছিলেন ত্রিপুরায় শিকড় গেড়ে বসা বাম সরকার উত্খাত হোক| ত্রিপুরায় এর আগে কখনো কোনো আসন পায়নি বিজেপি| এবার শুরু থেকেই এই রাজ্যে জয় পেতে আটঘাট বেঁধে মাঠে নামে দলটি|
প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিসহ দলের কেন্দ্রীয় বাঘা বাঘা নেতা সেখানে প্রচারে নামেন| প্রচারে এসে ভোটারদের উদ্দেশে মোদি বলেছিলেন, ‘মানিক ফেলে এবার হীরা তুলে নিন!’ এই অঞ্চলে একেবারেই পাত্তা না পাওযা কেন্দ্রে ক্ষমতাসীন বিজেপি জয় পেতে দীর্ঘদিন ধরে এগিযেছে| অন্য দল ভাঙিযে চৌকস নেতাদের নিজ দলে টেনে নিযেছে|
তাঁদের জনপ্রিয়তা কাজে লাগিযেছে| বামদের ঘাঁটি ভাঙতে নির্বাচনী জোট গড়তেও কৌশলী হয় দলটি| জোট ভাঙা“গড়ার খেলায় সেই নেতারা কৌশলের পরিচয় দিযেছেন| নির্বাচনী প্রচারে দেদার অর্থও ব্যয় করেছে দলটি| আর সব মিলিযে দেরিতে হলেও ফল পেযেছে বিজেপি|
বলা হযে থাকে, কংগ্রেস ছেড়ে ২০১৫ সালে বিজেপিতে যোগ দেওযা হিমন্ত বিশ্ব শর্মা এই অঞ্চলে বিজেপিকে প্রতিষ্ঠিত করতে সবচেযে বড় ভূমিকা রেখেছেন| ৪৯ বছর বয়সী এই নেতা জোট গড়তে তাঁর কৌশলী পদক্ষেপের কারণে প্রশংসিত হযেছেন| এর আগে মণিপুর, আসাম ও অরুণাচলে বিজেপির সমর্থন বাড়িযেছেন| অরুণাচল প্রদেশে হিমন্ত শর্মা কংগ্রেস বিদ্রোহীদের দল ছাড়তে উদ্বুদ্ধ করেন|
৪০ জন বিদ্রোহী নেতা কংগ্রেসে ফিরেও গিযেছিলেন| তবে হিমন্ত শর্মার কথায় তাঁরা আবারও দল ছেড়ে দেন এবং আঞ্চলিক একটি দলে যোগ দেন| ওই দল পরে অরুণাচলে বিজেপি সমর্থিত সরকার গঠন করে|
উত্তর“পূর্ব অঞ্চল জযে অভিযানে নামা হিমন্ত বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ উত্তর“পূর্বে অভূতপূর্ব মনোযোগ দিচ্ছেন, এ কারণেই আমি বিজেপিতে| আমার পুরো রাজনৈতিক জীবনে আমি কোনো জাতীয় দলকে এই অঞ্চলে এত মনোযোগ দিতে দেখিনি| এই অঞ্চলের মানুষের হৃদয় জয় করেছেন তাঁরা|’

 ত্রিপুরায় আরএসএস সমর্থনে বিজেপি ভাল ফল করেছে

এ ছাড়া কট্টর হিন্দু সংগঠন রাষ্ট্রীয় স্বযংসেবক সংঘের (আরএসএস) সঙ্গে বিজেপির সখ্যতাও এই অঞ্চলে জয় পেতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে| সংঘ দুর্গম এলাকায় সুবিধাবঞ্চিত জনগোষ্ঠীর চিকিত্সা, সেবাসহ মৌলিক অধিকার প্রাপ্তির বিষযে কাজ করে|
পিছিযে পড়া অঞ্চলগুলোকে টার্গেট করে তৃণমূল পর্যা যে কাজ করে আরএসএস| তাদের এই কাজের ফল বিজেপি পায় আসাম নির্বাচনে জযে মধ্য দিযে এরপর খুব দ্রুত ত্রিপুরাসহ খ্রিষ্টানপ্রধান নাগাল্যান্ড ও মেঘালযে কাজ শুরু করে আরএসএস|
এদিকে ত্রিপুরায় মুখ্যমন্ত্রী হওযার ব্যাপারে সবচেযে বেশি আলোচনা হচ্ছে যাঁকে ঘিরে, তিনিও আরএসএসে প্রশিক্ষিত ছিলেন| আরএসএসে স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে কাজ করেছেন সেই বিপ্লব কুমার দেব| ৪৮ বছর বয়সী বিপ্লব দেব ত্রিপুরা বিজেপির সভাপতি| ত্রিপুরা থেকে বাম হঠাতে বিজেপি ও আরএসএসের সঙ্গে ঘণিষ্ঠভাবে কাজ করেছেন তিনি|
তাত্ক্ষণিক প্রতিক্রিযায় বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতা রাম মাধব পরিবর্তনের পক্ষে ত্রিপুরার ভোটাররা ভোট দেওযায় কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন| এখানে জয় পেতে দলের নেতা“কর্মীদের নিরলস পরিশ্রমের কথাও তিনি উল্লেখ করেন|
ত্রিপুরায় বামফ্রন্ট প্রথম ক্ষমতায় আসে ১৯৭৭ সালে| ১৯৮৩ সালের নির্বাচনেও জয় পান বামফ্রন্ট| মাঝে ১৯৮৮ সালের ভোটে জয় পায়নি দলটি| তবে ১৯৯৩ সালে ক্ষমতায় আসার পর একটানা চারবার জয় পায় বামফ্রন্ট|
শাসক বাম দলকে চ্যালেঞ্জ করে বিজেপি এবার জোট গড়ে আইপিএফটির (ইনডিজেনাস পিপলস ফ্রন্ট অব ত্রিপুরা) সঙ্গে|
২০১৩ সালের নির্বাচনে কংগ্রেস ১০টি আসন পেলেও এবার কোনো আসন পায়নি| সিপিএম ৪৯টি আসন পেযেছিল গত নির্বাচনে| এবার পেল ১৮টি| বিজেপি আইপিএফটির সঙ্গে জোট বেঁধে পেল ৪১টি আসন|
Please follow and like us:
Loading...