ত্রিপুরার গেরুযা ঝড় উঠছে, কাঁপছে বাংলার কুর্সিও! মমতাকে চরম বার্তা মুকুলের

0 41
কলকাতা (এজেন্সী) – মুকুল রায় তৃণমূল ছাড়ার পর আশঙ্কা করা হয়েছিল বাংলার ৱুকে বিজেপির জোযার বইবে| তৃণমূলের প্রাক্তন ‘সেকেন্ড ইন কম্যান্ডে’র হাতে ধরে তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে আসবেন অনেকেই|
মুকুলের আগমনের পর তুলনায় বিজেপি বাড়লেও, আদতে তৃণমূলের গায়ে কোনও আঁচড় কাটতে পারেনি গেরুযা শিবির| একটার পর একটা নির্বাচনে শোচনীয় হারের মুখ দেখতে হয়েছে, এখনও আশাতীত সাফল্য দিতে পারেননি মুকুল রায়|
সেই মুকুল রায় ভোট কৌশল নির্ধারণে ত্রিপুরায় গিয়ে বাংলার ৱুকে পদ্ম ফোটানোর সওযাল করলেন| ত্রিপুরার জনসভা থেকে মুকুল রায় বলেন, ‘ত্রিপুরায় এবার বিজেপি পতাকা উড়বেই| আর সেই জোযারেই পশ্চিমবঙ্গে ভেসে যাবে তৃণমূলের জনবিরোধী সরকার| বাংলায় পুলিশিরাজের সরকারকে উত্খাত করবে বিজেপিই| সেদিন আর বেশি দেরি নয়|’
এদিন মুকুল রায় ত্রিপুরাবাসীর কাছে আবেদন করেন, ‘কেন্দ্রের নরেন্দ্র মোদী সরকারের নেতৃত্বে দেশে উন্নয়ন কর্ময়জ্ঞ চলছে| সেই উন্নয়ন য়জ্ঞে এই রাজ্যকে সামিল করবেন কি না, তা পুরোপুরি আপনাদের হাতে| আপনারাই স্থির করুন বিজেপিশাসিত রাজ্যের সুফল লাভ করবেন কি না|
ত্রিপুরা বিজেপি জিতলে এই রাজ্যেও উন্নয়নের ধ্বজা উড়বে|’ মুকুল বলেন, ‘ত্রিপুরায় জিতলে পশ্চিমবঙ্গেও তৃণমূলের জনবিরোধী সরকারকে চরম বার্তা দেওযা যাবে| এ প্রসঙ্গে তিনি তুলে ধরেন ত্রিপুরায় তাঁর নেতৃত্বে তৃণমূলের উত্থানের কাহিনি|
ত্রিপুরার মানুষ পরিবর্তন চেয়েছিলেন বলেই তৃণমূলের উত্থান হয়েছিল| কিন্তু তাঁরাও ৱুঝতে পেরেছে, তৃণমূলের পক্ষে বাম শাসনের অবসান ঘটানো সম্ভব নয়|’ তাঁর কথায়, ‘ত্রিপুরার বাম সরকারের পতন ঘটাতে গেরুযা শিবিরে নাম লিখিয়েছেন পরিবর্তনপন্থীরা|
তাঁদের লক্ষ্য একটাই সিপিএমের ২৪ বছরের শাসনের অবসান ঘটানো| বিজেপি ই তা পারবে বলে বিশ্বাস থেকেই কংগ্রেস ও তৃণমূল কংগ্রেসের অস্তিত্ব এই রাজ্য থেকে ধুয়েমুছে সাফ হয়ে গিয়েছে|
মুকুল রায়ে যুক্তি, ‘এখন এ রাজ্যে য়দি সিপিএমের অপশাসন মুক্ত করা যায়, য়দি রাজ্যে বিজেপি পরিবর্তনের সরকার গড়া যায়, তা হবে প্রতিবেশী রাজ্যের তৃণমূল সরকারকেও চরম বার্তা দেওযা| সেদিকেই এগোচ্ছে রাজনৈতিক পরিস্থিতি| প্রতিটি জনসভায় ভিড়ই ৱুঝিয়ে দিচ্ছে ত্রিপুরায় পদ্ম ফোটা স্রেফ সময়ে অপেক্ষা|’

ত্রিপুরায় পরবর্তী সরকার বিজেপিরই হবে – অমিত শাহ

আগরতলা (এজেন্সী) – ত্রিপুরার বিজেপি অবশ্যই ক্ষমতায় আসছে দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ| রাজ্যে সিপিএইএম এর বিরুদ্ধে জনরোষ প্রকট হচ্ছে বলেও অভিমত ব্যক্ত করেছেন অমিত শাহ| সোমবার আগরতলায় এক সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি বলেন, ২৫ বছর ধরে য়ে সরকার ক্ষমতায় রয়েছে তারা বিকাশের দৌরে অনেক পিছিয়ে গেছে|
দেশের সব কয়টি রাজ্যগুলোর মধ্যে এই রাজ্য পেছনে গিয়ে ঠেকেছে| য়ে সমস্ত রাজ্যে এনডিএ এর সরকার রয়েছে সেখানে ২৪ ঘণ্টা বিদু্য়ত্ এবং পানীয় জলের প্রযোজনীয় সংস্থান রয়েছে| ২৫ বছর কোন ব্যক্তি বা রাষ্ট্রের জীবনে কম গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নয়| কিন্তু এই সময়ে রাজ্যের আশানুরূপ কিছুই হয়নি|
তিনি বলেন, বিপর্যতয় আসন্ন সিপিআইএম এটা ৱুঝে গেছে| আর তাই এখন হিংসার রাজনীতিতে নেমেছে বামেরা| রামনগরের ৱুথ সভাপতি মধুসুধন দেকে অপহরণ করে নিয়ে ২ দিন আটকে রাখা হয়| পুলিশ মহানির্দেশক খুঁজে বের করার প্রতিশ্রুতি দেওযার পর তার দেহ মিলল| তাকে হত্যা করে গাছে ঝুলিয়ে রাখা হয়| নির্বাচনী প্রক্রিযার প্রশাসনকেও কাজে লাগানো হচ্ছে| য়দিও প্রশাসনের লোকেদের জানা দরকার তাদের নিরপেক্ষতা রাখা বিশেষ জরুরি|
মুকুল আরো বলেন, সিপিআইএম এর শাসনে বেকার সংখ্যা বেড়ে ৭ লক্ষ ৩৩ হাজার হয়েছে| য়খন তারা ক্ষমতায় এসেছিল তখন বেকার ছিল ৭৫ হাজার| এই সংখ্যা কিভাবে এতোটা বৃদ্ধি পেলো তার কোন জবাব মানিক সরকারের কাছে নেই| কিন্তু এর পরিণাম ভোগ করতে হবে|
তিনি উল্লেখ করেন রাজ্যের বিভিন্ন এলাকায় বাম সন্ত্রাস জারি আছে| কিন্তু এসব করে জনমতকে প্রভাবিত করা যাবেনা| পরিস্থিতি সিপিআইএম এর নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে|

You might also like More from author

Comments

Loading...