My title page contents Press "Enter" to skip to content

এনআইএর অধিকারের সীমা নির্দিষ্ট করা নিয়ে বিপক্ষের সওয়াল




নয়া দিল্লিঃ এনআইএর অধিকারের সীমা নির্দিষ্ট করা নিয়ে বিপক্ষ সওয়াল করল।

বিপক্ষ দলগুলি বলল যে জাতীয় তদন্ত সংস্থা এন আই এ কে সন্ত্রাসবাদ এবং অন্য অপরাধ থামানোর জন্য

জাতীয় তদন্ত সংস্থা (সংশোধন) অধিনিয়ম ২০১৯ এর অন্তর্গত যেসব অধিকার দেওয়া হয়েছিল

সেগুলির যাতে সঠিকভাবে প্রয়োগ করা হয়, সেটি সুনিশ্চিত করতে হবে।

সোমবার লোকসভায় কংগ্রেসের মনিষ তিওয়াড়ি এই প্রসঙ্গে আলোচনা শুরু করেন।

তিনি বলেন যে যতক্ষণ না কোন ব্যক্তির ওপর অপরাধ প্রমাণিত হয়,

ততক্ষণ পর্যন্ত তাকে প্রতাড়িত করা ঠিক নয়।

ধর্মের ওপর ভিত্তি করে কাউকে আইনি ব্যবস্থার মাধ্যমে প্রতাড়িত করা ঠিক নয়।

আইন সব মানুষকেই স্বচ্ছতার সাথে ন্যায় বিচার দেবার জন্য তৈরি করা হয়।

তিনি বলেন যে এন আই এ কে আইনের মাধ্যমে অনেক অধিকার দেওয়া হয়েছে।

এন আই এ যাতে তাদের অধিকারের সঠিক প্রয়োগ করে সেটা দেখা সরকারের কর্তব্য।

তিনি বলেন যে, ২০০৮ সালে মুম্বাইতে সন্ত্রাসবাদী হামলা হয়েছিল।

সেই সময় সন্ত্রাসবাদ আমাদের দেশকে খুব বেশী রকমভাবে নাড়া দিয়েছিল।

সেই জন্যই এই আইন তৈরি করা হয়েছিল।

কিন্তু এখনো পর্যন্ত তাদের সাংবিধানিক পরিধি তৈরী করা হয় নি।

তিনি প্রশ্ন করেন যে, ভারতীয় জনতা পার্টির সরকার কেন্দ্রে ৫  বছরের থেকে বেশী সময় ধরে শাসন করছে,

কিন্তু এখনো পর্যন্ত এই সংস্থার সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতার বিষয়ে কোন কথা ওঠে নি।

এনআইএর অধিকারের সীমা নিয়ে সব দল সরব

দ্রাবিড় মুন্নেত্র করগমের এ রাজা বলেন যে, যেই বিশ্বাসের সাথে এই বিধেয়কটি আনা হয়েছে

সেটি সব সময় পালন করা দরকার।

এই বিধায়কের মাধ্যমে এন আই এর অধিকার বাড়ানো হয়েছে।

সেজন্য এই সংস্থার কাজকর্ম স্বাধীন থাকা দরকার।

তিনি বলেন যে এর আগে পোটা এবং টাডার মত আইনের ভুল প্রয়োগ করা হয়েছিল।

সেজন্যই এখনো মানুষের মনে এই নিয়ে আশঙ্কা তৈরী হয়েছে।

তিনি কলবুর্গী এবং গৌরী লঙ্কেশের মত লেখকদের হত্যাকে লেখকদের বিরুদ্ধে

সন্ত্রাসবাদ বলে অভিহিত করেন।

ভারতীয় জনতা পার্টির সত্যপাল সিং বলেন যে এটি দুর্ভাগ্যের বিষয় যে

আমাদের দেশে সন্ত্রাসবাদকে রাজনীতিক ইস্যু বানানো হয়।

তিনি বলেন যে সন্ত্রাসবাদ মানবতার বিরুদ্ধে একটি গভীর অপরাধ

এবং এই অপরাধ যারা ঘটায় তাদের বিরুদ্ধে কঠোর  ব্যবস্থা নেওয়া দরকার।

২০০৮ সালের ঘটনার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন যে

সেই সন্ত্রাসবাদী ঘটনায় মুম্বাইতে ১৬০ জন নিহত হয়েছিলেন

এবং ৩০০ থেকেও বেশি মানুষ আহত হয়েছিলেন।

সারা বিশ্বের মানুষ টিভি চ্যানেলগুলোর মাধ্যমে দেখেছিলেন যে

ভারত কিভাবে সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়তে অক্ষম।



Spread the love
More from নেতাMore posts in নেতা »

Be First to Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.