ইন্টার যূনিভার্সিটী যূনিফেস্ট ২০১৮র সমাপন সমারোহে অংশগ্রহণ করলেন মুখ্যমন্ত্রী

মুখ্যমন্ত্রী
রাঁচি (সং)- মুখ্যমন্ত্রী শ্রী রঘুবর দাস বললেন আমাদের দেশ দুনিযার মধ্যে সবথেকে বড় যুবা দেশ| এই দেশের জনসংখ্যার ৬৫ শতাংশতে পযত্রিস বর্ষের কম বযসের যুবকেরাই আছে| তাই যুবকেরাই আমাদের ধন| আর এই যুবা শক্তির ব্যাবহারের দ্বারাই ভারতকে পুনরায বিশ্ব গুরুতে পরিনত করা যাবে|
মুখ্যমন্ত্রী এই কথাগুলি তেত্রিশ তম ইন্টার যুনিভার্সিটী রাষ্ট্রীয যুবা মহোত্সব ইউনিফেস্ট ২০১৮ পলাসের সমাপ্ত সমারোহে তিনি বললেন|
তিনি এও বললেন দেশকে এগিযে নিযে যাওযার জন্য এর থেকে বড় পুঁজি আর কিছুই হতে পারে না যা আমাদের কাছে আছে| দেশের লোকপ্রিয প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদী যুবা শক্তিকে ৱুঝএছেন আর তাদের ডিগ্রি দিযে যোগ্যতে পরিনত করারা দিকেই নজর রেখেছেন|
স্কিল্ড মানুষের চাহিদা আজ সারা দুনিযাতেই আছে| যুবা যদি যোগ্যতে পরিনত হয তাহলে সারা দুনিযাতেই চারচাঁদ লেগে যাবে| মুখ্যমন্ত্রীর মতে স্বপ্ন তো দেখতেই হবে| আর এই স্বপ্ন রাষ্ট্রকে যুক্তের জন্যই দেখতে হবে|
তাঁর ভাষায রাষ্ট্রের নির্মানের স্বপ্ন তিনিও দেখেছেন| টাটা কোম্পানিতে শ্রমিকের কাজ করে তিনি প্রথমে বাৱু হওযার স্বপ্ন দেখেন| পরে তিনি পুনরায নিজের স্বপ্নকে রাষ্ট্র নির্মানের সঙ্গেই জোড়েন| আর আজ ঈশ্বরের দযাতেই তিনি রাজ্যের মুখ্য সেবক হওযার দাযিত্বটি পেযেেন|
শ্রী রঘুবর দাস বললেন দেশবাসীকে পুনরায ভারতকে বিশ্ব গুরুতে পরিনত করতে হবে| এখানের সংস্কৃতির জ়ড যথেষ্ট মজৱুত| ছযশ বর্ষ গুলাম থেকেও এখানের সংস্কৃতিকে কেউ মুখে দিতে পারেনি| এই সংস্কৃতির মাধ্যমেই সকলে দুনিযার পথপ্রদর্শকে পরিনত হতে পারবে|
আমাদের দেশে কোনে কোনে কলা বর্তমান| এটি ব্যাক্তিত্ব নির্মানের ক্ষেত্রে অহম ভুমিকা পালন করে থাকে| পলাশের মত অনুষ্ঠানের থেকে যুবা নিজের প্রতিভা দেখাবার সুযোগ পায| ঝাড়খণ্ডে পৌঁছেছে দেশের বিশ্ববিদ্যালযে যুবকেরা এখান থেকে কিছু নিশ্চযই শিখেছে|
ঠিক সেইভাবেই এখানের রাজ্যের যুবকেরাও অনেক কিছু জ্ঞান লাভ করেছে| আর সংস্কৃতির আদান প্রদানের মাধ্যমেই একটি ভারত থেকে শ্রেষ্ঠ ভারত নির্মানের পথটি সহজেই খুলে যাবে|
ঝাড়খণ্ড রাজ্যতেও নৃত্য সঙ্গীত এবং গীতের পরিচয মেলে| এইধরনের আযোজনের মাধ্যমে এইসব প্রতিভাগুলি নিজের পরিচয স্থাপনের রাষ্ট্রীয মঞ্চ বলেই মনে করা হয|
কার্যুক্রমে বিভিন্ন প্রতিযোগিতাতে বিজযী প্রতিযোগীদের পুরস্কৃত করা হয| কার্যযক্রমে খেল মন্ত্রী শ্রী অমর বাউরি, বিধাযক ডঃ জীতু চরন রাম, রাঁচি বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য শ্রী আর০ কে০ পান্ডে, সহ অধিক সংখ্যায গণমান্য অতিথি উপস্থিত ছিলেন|
Please follow and like us:
Loading...